চার মেয়ে লেখাপড়ায়, বাবা করছেন জুতা সেলাই!

নওগাঁ প্রতিনিধি   |   ১২:০৭, অক্টোবর ২৩, ২০১৯

নওগাঁ সড়কের মুক্তির মোড়ে ফুটপাতে বসে জুতা সেলাই করেই চলেছেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি বাবা গোপাল দাস। এই সামান্য উপার্জন দিয়ে মেয়েদের পড়াশোনার পাশাপাশি সংসারও চালান তিনি।

জানা গেছে, গোপাল দাসের চার মেয়ে। তারা সবাই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছেন। এত প্রতিকূলতার মধ্যেও মেয়েদের পড়াশোনার মাধ্যমে আত্মনির্ভরশীল করে তোলার স্বপ্ন দেখেন বাবা গোপাল দাস।

চার মেয়েও ভীষণ আত্মপ্রত্যয়ী। তারাও সঠিক শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সরকারি চাকরি নিতে চায়। তাদের সবার কণ্ঠেও শোনা গেছে আত্মবিশ্বাসের কথা।

খবর নিয়ে জানা গেছে, গোপাল দাসের এক মেয়ে পড়াশোনা করছেন ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের এ এম আই ই কোর্সে। অন্য মেয়েরা কলেজ ও মাধ্যমিকে পড়াশোনা করছে। এর মধ্যে দুই মেয়ের বিয়ে এখনো হয়নি।

কান্না জড়িত কণ্ঠে গোপাল তার দৈন্যতার কথা জানাতে গিয়ে বলেন, এক সময় সড়কের পাশে কুঁড়ে ঘরের দোকান ছিল তার। পরে সেটি ভেঙে দেয়া হয়। এরপরই সংসারে দৈন্যতা নেমে আসে।

তিনি আরো জানান, ফুটপাতে বসে জুতা সেলাই করায় কমে গেছে রোজগার। বয়স বেড়ে গেছে। প্রায় সময়ই অসুস্থ থাকতে হয়। এতে রোজগার করতে খুব কষ্ট হয়।

এদিকে গোপালের এ এম আই’তে পড়াশোনা করা মেয়ে জানান, পড়াশোনা শেষ করে তার একটাই স্বপ্ন, সে ভালো পুলিশ অফিসার হবে। অন্যথায় সে বিমানবালায় কেবিন ক্রু হিসেবে যোগ দিবে।

তার কলেজে পড়ুয়া অন্য মেয়ে জানান, আমার স্বপ্ন, আমি ডিগ্রি পাস করে ভালো একটা সরকারি চাকরি করবো। অপর এক মেয়ে জানান, আমরা ছোট দুই বোন ভালো কিছু করতে চাই। শেষ বয়সে আমার বাবাকে সুখী দেখতে চাই।

জেডআই


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর