শীতের সবজিতে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন কৃষকদের

ফারুক আহমেদ, সলঙ্গা (সিরাজগঞ্জ)   |   ০৪:০৯, অক্টোবর ৩১, ২০১৯

কয়েক দিন আগে বৃষ্টিতে আগাম শীতকালিন সবজি নষ্ট হওয়ায় ও ধানচাষে টানা কয়েক বছর লোকসান গুনে সিরাজগঞ্জের সলঙ্গাতে কৃষকরা এবার শীতের সবজিতে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছে।

আর তাই এখন দম ফেলার যেন সময় নেই তাদের হাতে কোদাল ও নিড়ানি। কারো হাতে শাবল, কেউ বা আবার গরুর নাঙ্গল জোয়াল নিয়ে মাঠে যাচ্ছে। অনেকের পিঠের পিছনে কীটনাশক দেয়ার স্প্রে মেশিন। কখনও দল বেঁধে; আবার কখনও একাই সবজি ক্ষেতের পরিচর্যা করছে কৃষকেরা। সিংহভাগ কৃষকের দিন এখন ক্ষেতেই কেটে যাচ্ছে। অনেকে আবার টেলি বসিয়ে রাতও সেখানে যাপন করছে। এত কর্মযজ্ঞ কেবল বেঁচে থাকার তাগিদে।

বাড়তি আয়ের আশায় কৃষকের পরিশ্রম ফলও দিয়েছে। চারদিকে সবজির সমারোহ। বাঁধাকপি, ফুলকপি, মুলা, করলা, লাল শাক, পালং শাক, শিম, টমেটো, বেগুন, লাউ, শসা, মিষ্টি কুমড়া, বরবটি, ডাটা, চিচিঙা, পটল, আলু, ও কাঁচা মরিচগাছে ছেয়ে আছে বিস্তীর্ণ মাঠ। শীতকালীন এসব ফসলের অধিকাংশই কৃষক নিয়মিত বাজারজাত করছে। দামও পাচ্ছে বেশ ভালো।

সিরাজগঞ্জের জেলার রায়গঞ্জ, তাড়াশ ও উল্লাপাড়া উপজেলাসহ সলঙ্গার আমশড়া, ধুবিল, মালতিনগর, সাতকুর্শি, ইছিদহ, তাড়াশের ঝুরঝুরি, লক্ষিপুর, সরাপুর, ভিকমপুর,চকঝুরঝুরি, উল্লাপারার রৌহদহ, চকনিহাল, আগরপুর, মাহমুদপুর, চৈত্রহাটি, জালসুকাসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে সবজি চাষিদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানা গেছে, চলতি রবি মৌসুমে জেলায় দশ হাজার হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হয়। যা গত বছর চাষ করা হয়েছিল সাত হাজার হেক্টর জমিতে।

সলঙ্গা থানার ৩নং ধুবিল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের আমশড়া গ্রামে মৃত আকবার আলীর ছেলে সবজি চাষি মুজাম্মেল হোসেন বলেন, ধানচাষে টানা কয়েক বছর লোকসান দেয়ার পর এমনকি গত এক মাস আগে বৃষ্টি পাতে সবজির ক্ষেত নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এবার আমরা সবজি চাষে খুব ভালো সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছি। সবজি চাষে জমি ও পুঁজি কম লাগে। এবার সবজির দাম ভালো, ফলনও ভালো হয়েছে। তাই নতুন আশায় সঞ্চার হয়েছে।

খর্দ্দশিমলা গ্রামের গ্রামের সবজি চাষি সহেদ আলী বলেন, এ বছর ৩ বিঘা জমিতে খিড়াসহ আমি সবজি চাষ করেছি। খিরাসহ সকল সবজি ভালো দেখছি। আবহওয়া অনুকূলে থাকলে ফলনও বেশ ভালো হবে ইনশল্লাহ।

রায়গঞ্জ উপজেলার ধুবিল ইউনিয়নের কৃষি স্প্রসারণ অধিদফতরের কর্মকর্তা আব্দুল হাই বলেন, ইউনিয়নের কৃষকরা ধানচাষে তেমনি একটা সুবিধা করতে পারছে না। তাই চলতি রবি মৌসুমে সবজির আবাদ ব্যাপকহারে করা হয়েছে। সবজির দাম এখন কিছুটা বৃদ্ধি হলেও কিছুদিন পরে তা কমে যাবে।

এমআর


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর