নীতিমালা চূড়ান্ত যেকোনো সময় প্রজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ৫ শতাংশ সুদে গৃহঋণ

প্রিন্ট সংস্করণ॥আসিফ শওকত কল্লোল ও রাসেল মাহমুদ   |   ০১:০১, নভেম্বর ০৫, ২০১৯

৬৪ বছর পর্যন্ত আবেদনের সময় রেখে পাঁচ শতাংশ সরল সুদে গৃহনির্মাণের জন্য ঋণ পাবেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীরা। ঋণের এ পদক্ষেপ চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। চলতি মাসের মধ্যেই প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। গতকাল সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেট অনুবিভাগ-১ এর অতিরিক্ত সচিব মো. হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে এ সংক্রান্ত একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় নীতিমাল চূড়ান্ত করাসহ এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সভায় ছয়জন শিক্ষক প্রতিনিধিসহ বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় উপস্থিত একাধিক শিক্ষক প্রতিনিধি আমার সংবাদকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সরকারি অন্যান্য চাকরিজীবীরা ৫৮ বছর বয়স পর্যন্ত ঋণের আবেদনের সুযোগ পেলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা পাবেন ৬৪ বছর বয়স পর্যন্ত। যদিও তাদের চাকরির বয়সসীমা ৬৫ বছর।

সভায় উপস্থিত বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের যুগ্ম মহাসচিব মেহেদী হাসান আমার সংবাদকে বলেন, অর্থমন্ত্রণালয়ে আমাদের একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, শিক্ষকরা ৬৪ বছর পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবেন। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরাও এ ঋণ পাবেন। সবকিছু ঠিক থাকলে এ মাসের মধ্যেই চূড়ান্ত প্রজ্ঞাপনের জন্য এটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যাবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. নূরু মোহাম্মদ আমার সংবাদকে বলেন, আমাদের ফলপ্রসূ একটি আলোচনা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই বিষয়টি আটকে ছিলো। এখন এটি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এ মাসের যেকোনো সময় প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে।

জানা যায়, ব্যাংক থেকে সরকারি কর্মচারীদের পাঁচ শতাংশ সরল সুদে সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকা পর্যন্ত গৃহনির্মাণ ঋণ দিতে গত ৩০ জুলাই অর্থ বিভাগ ‘সরকারি কর্মচারীদের জন্য ব্যাংকিং-ব্যবস্থার মাধ্যমে গৃহনির্মাণ ঋণ প্রদান নীতিমালা-২০১৮’ জারি করে।

চাকরি স্থায়ী হওয়ার পাঁচ বছর পর থেকে সরকারি চাকরিজীবীরা এই ঋণ পাওয়ার জন্য যোগ্য হবেন। ঋণের সীমা ঠিক করা হয়েছে ২০ লাখ থেকে ৭৫ লাখ টাকা। সর্বোচ্চ ২০ বছরের মধ্যে ঋণ পরিশোধ করতে হবে। এই ঋণের জন্য ব্যাংক ১০ শতাংশ হারে সরল সুদ অর্থাৎ, চক্রবৃদ্ধি সুদ (সুদের ওপর সুদ) নিলেও ঋণ গ্রহীতাকে দিতে হবে পাঁচ শতাংশ।

সুদের বাকি অর্থ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় ভর্তুকি হিসেবে পরিশোধ করবে। দেশে বর্তমানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ৪৫টি রয়েছে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষকসহ চার-পাঁচ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন।

এসটিএমএ


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর