৩৮ বছর ধরে রেডিও শুনছেন শাহজাহান আলী!

শিমুল বিশ্বাস, চাটমোহর (পাবনা)   |   ০২:৫০, নভেম্বর ০৫, ২০১৯
ছবি- আমার সংবাদ

পাবনার চাটমোহর পৌর সদরের বালুচর মহল্লার মৃত. জসিম উদ্দিন সরকারের ছেলে প্রাক্তন মেডিক্যাল এ্যাসিসটেন্ট আলহাজ শাহজাহান আলী এখনও নিয়মিত ভাবে শুনছেন রেডিও।

১৯৮২ সালে কর্ম জীবনের শুরুতে তার সম্মানী ভাতার টাকা থেকে ৪৪০ টাকা দিয়ে পাবনা খান এ্যান্ড সন্স ইলেট্রনিকের দোকান থেকে ন্যাশনাল ব্র্যান্ডের রেডিওটি ক্রয় করেন। এখনও সেই রেডিও ব্যবহার করে নানা ধরণের প্রোগ্রামগুলো নিয়মিত শুনে যাচ্ছেন। রেডিওটি মাঝে মধ্যে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিলে সেটি মেরামত না করা পর্যন্ত তিনি স্বস্তি পাননা। চাকরি জীবনে তিনি বিভিন্ন কর্মস্থলে থাকা অবস্থায় অবসরে তিনি রেডিও শুনতেন।

উপ-সহকারি কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার হিসেবে ৩৬ বছর চাকরি করে ২০১৭ সালে অবসরে গেছেন তিনি। রেডিও প্রোগ্রাম গুলোর মধ্যে রাতে ঢাকা থেকে প্রচারিত ফোন ইন প্রোগ্রাম তার প্রিয় একটি অনুষ্ঠান।

এছাড়াও দিনের বিভিন্ন সময়ে প্রচারিত গ্রামীণ নাটক, আধুনিক গান, খবর ও স্বাস্থ্য বিষয়ক অনুষ্ঠান তিনি বিশেষ ভাবে শ্রবন করেন।

যুগের পুরিবর্তনে মানুষ যখন ফেসবুক, ভাইবার, টুইটারসহ সহজলভ্য টেলিভিশনের মাধ্যমে দেশ বিদেশের খবর, গান, ইতিহাস, ঐতিহ্য, স্বাস্থ্য, চিকিৎসা সকল কিছুই দেখতে শুনতে পাচ্ছেন ঠিক সে মুহূর্তে এসকল কিছু থেকে বিরত থেকে সময় পেলেই রেডিও শোনেন শাহজাহান আলী। ৩৮ বছর ধরে এখন পর্যন্ত তিনি নিয়মিত রেডিওর প্রোগ্রামগুলো শুনেন আসছেন। এই রেডিওর প্রোগ্রাম শোনাটা এখন তার কাছে নেশায় পরিণত হয়েছে।

আধুনিক যুগে রেডিও শোনার বিষয়ে আলহাজ শাহজাহান আলী জানান, ১৯৮২ সালে মেডিক্যাল এ্যাসিসট্যান্ট (শিক্ষা নোবিশ) হিসেবে চাকরি করা অবস্থায় ৪’শ টাকা মাসে ৪ মাসের ২ হাজার টাকা বেতন পেয়ে প্রথমে আমি ৪৪০ টাকা দিয়ে পাবনা থেকে ন্যাশনাল ব্র্যান্ডের রেডিওটি ক্রয় করি। সেই রেডিওতে প্রচারিত প্রোগ্রাম গুলো এখনও আমি নিয়োমিত শুনে আসছি।

তিনি আরও বলেন, রেডিওর অনুষ্ঠান মালা সেই আগের মতো না থাকলেও এটা আমার কাছে নেশার মতো হয়ে গেছে। বাংলাদেশ বেতারের কাছে আমার চাওয়া থাকবে, স্বাস্থ্য বিষয়ক ও ইসলামী ইতিহাস প্রোগ্রাম গুলো বেশি বেশি প্রচারের জন্য।

এমআর


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর