আবরারের লাশ তুলে ময়নাতদন্তের নির্দেশ

আদালত প্রতিবেদক   |   ০৭:১২, নভেম্বর ০৬, ২০১৯

ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী নাইমুল আবরার রাহাতের বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগে করা মামলায় আবরারের লাশ কবর থেকে তুলে ময়নাতদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (৬ নভেম্বর) ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আমিনুল হকের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন আবরারের বাবা মজিবুর রহমান। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ শেষে আবরারের লাশ কবর থেকে তুলে ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেন আদালত।

আগামী ১ ডিসেম্বর মোহাম্মদপুর থানা পুলিশকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এ মামলায় দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক ও প্রকাশক এবং কিশোর আলোর প্রকাশক মতিউর রহমানের নাম উল্লেখ করে এবং কিশোর আলোর বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

আদালতে মামলার শুনানি ও ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট জবানবন্দি দেয়ার সময় আবরারের বাবাকে কাঁদতে দেখা যায়।

জবানবন্দি গ্রহণকালে আদালত বাদীর কাছে জানতে চান, আবরারের মৃত্যুর জন্য কাদের দায়ী করছেন? তখন বাদী বলেন, যারা অনুষ্ঠান করেছে, আমার ছেলের মৃত্যুর জন্য তারা দায়ী। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই। আদালতে আবরারের মা এবং চাচাত ভাই আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বাদী অভিযোগ করেন- গত ১ নভেম্বর ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে মাসিক সাময়িকী কিশোর আলোর বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানে যায় নাইমুল আবরার। অনুষ্ঠান চলাকালে সাড়ে ৩টার দিকে আবরার বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ে যায়।

ঘটনাস্থলের কাছে সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থাকলেও আবরারকে মহাখালীর ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নেয়া হয়।

অভিযোগে আরো বলা হয়-নাইমুল আবরার বিদ্যুৎপৃষ্ট হয় বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৩টায়। চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন ৪টা ৫১ মিনিটে। আবরারের মৃত্যুর সংবাদ কিশোর আলো এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ গোপন করে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত অনুষ্ঠান চালিয়ে যায়।

কর্তৃপক্ষ আবরারের মৃত্যুর বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়নি। আবরারের পরিবার এক সহপাঠীর মাধ্যমে তার মৃত্যুর খবর পায়, যা পরিকল্পিত ও অবহেলাজনিত হত্যাকাণ্ড। নাইমুল আবরারের মৃত্যু কোনো দুর্ঘটনা বা অপমৃত্যু নয়। বরং আসামিদের চরম অবহেলা, অযত্ন, অমনোযোগিতা, গাফিলতি, অব্যবস্থাপনা, চিকিৎসায় অবহেলা ও অসাবধানতার কারণে আবরারের মৃত্যু হয়েছে। একই সাথে বাদী আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন।

কেকে/আরআর


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর