ব্যবসার নামে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে পবিএমএল

প্রিন্ট সংস্করণ॥আসিফ শওকত কল্লোল ও ফারুক আলম   |   ১২:২০, নভেম্বর ০৮, ২০১৯

ওরিয়ন গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান পানবো বাংলা মাশরুম লিমিটেড (পবিএমএল) একটি ডাচ কোম্পানির অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখছে নেদারল্যান্ডে বাংলাদেশ অ্যাম্বাসি।

নেদারল্যান্ডে বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির কাউন্সিলর খোন্দকার এহতেশামুল কবীর এক চিঠিতে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যানকে এ নিয়ে যথাযোগ্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে— ডাচ কোম্পানি ফাঙ্গি ফ্ল্যাবার কাছ থেকে ১৮ হাজার ইউরো বা ১৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা অর্থ নিয়ে কোনো ধরনের মাশরুম রপ্তানি করেনি।

ওরিয়ন গ্রুপের সহযোগী কম্পানির এরূপ কর্মকাণ্ড বাংলাদেশের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর এবং দেশে বিদেশি বিনিয়োগপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে অন্তরায় হতে পারে।২০১২ সালের ১০ ডিসেম্বর নেদারল্যান্ডের বাজারে দেশের মাশরুম রপ্তানির জন্য পবিএমএল সাথে ফাঙ্গি ফ্ল্যাবার সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষর করেন ।

সমঝোতার শর্তানুসারে ফাঙ্গি ফ্ল্যাবার স্বত্বাধিকারী মিস্টার কিইস ডি জোন প্রাথমিকভাবে পেনবিও মাশরুম লিমিটেডকে ১৮ হাজার ইউরো প্রদান করে। কিন্তু পরবর্তীতে ওরিয়ন কোম্পানির সহযোগী প্রতিষ্ঠান চুক্তির শর্ত লঙ্ঘন করে এবং ফাঙ্গি ফ্ল্যাবারের সাথে সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।

এমনকি ডাচ কোম্পানির প্রাথমিকভাবে দেয়া ইউরো ফেরত প্রদানে অনীহা প্রকাশ করে। নেদারল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত চিঠিতে আরও বলা হয়েছে— কিইস ডি জোন নেদারল্যান্ডে মাশরুম ব্যবসাক্ষেত্রে একজন স্বনামধন্য ব্যক্তিত্ব যিনি বর্তমানে তার পরিবারিক ব্যবসার তৃতীয় প্রজন্মের কর্ণধার।

বর্তমানে তিনি চীন, বসনিয়া এবং সার্বিয়াতে উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে মাশরুম উৎপাদনে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছেন এবং এসব দেশে উৎপাদিত মাশরুম থেকে প্রতিদিন প্রায় দুশত টন নেদারল্যান্ডের বিভিন্ন সুপার মার্কেটে সরবরাহ করে আসছে।

দূতাবাসে উপস্থিত হয়ে তিনি আরও জানিয়েছেন যে, বাংলাদেশকে ভালোবাসেন এবং এ দেশে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। তবে পুনর্বিনিয়োগের পূর্বে তিনি পানবো বাংলা মাশরুম লিমিটেড (পবিএমএল)-এর সাথে সৃষ্ট সমস্যা নিরসনে দূতাবাসের সহায়তা কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে ওরিয়ন গ্রুপে ফোনে যোগাযোগ করা হলে প্রতিবেদককে অফিসে এসে কথা বলতে বলা হয়। পরে অফিসে যোগাযোগ করা হলে ওরিয়ন গ্রুপের গ্রাউন্ড ইনচার্জ আরাফত বলেন, মিডিয়া উইংয়ের ব্যাপারে তানভীর আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি ঢাকা পাওয়ার বিল্ডিংয়ের ৪র্থ তলায় বসেন। তানভীর আহমেদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে ওরিয়নগ্রুপের কর্পোরেট অ্যাফেয়ার বিভাগের নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আজমল হোসেন আমার সংবাদকে বলেন, নিউজের তথ্য আমাকে বলতে পারেন।
কারণ তানভীর স্যার মিটিংয়ে।

তথ্য জানানো হলে আজমল বলেন, পরবর্তীতে আপনাকে (প্রতিবেদক) ফোনে জানিয়ে দেয়া হবে কার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। এ ব্যাপারে প্রতিবেদক ফের ফোন করলে আজমল হোসেন বলেন- কাল সকালে এসে ওরিয়নগ্রুপের ভাইস-প্রেসিডেন্ট চৌধুরী খালেদ মোরশেদের সঙ্গে অফিসে এসে যোগাযোগ করেন। কারণ তিনি ফোনে কথা বলবেন না। এই ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার ফের ওরিয়নগ্রুপে খালেদ মোরশেদের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া হলে তাকে অফিসে পাওয়া যায়নি।

পানবো বাংলা মাশরুম লিমিটেড ওয়েব সাইড অনুসারে ইউরোপিয়ান প্রযুক্তি ও মেশিন ব্যবহার করে মাশরুম উৎপাদন করে। পানবিএমএল বাংলাদেশ প্রথম বাণিজ্যিকভাবে মাশরুম উৎপাদনকারী আন্তর্জাতিক পিবিএমএল রপ্তানিকারী প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠান সাদা মাশরুম উৎপাদন করে সারা দেশের সুপার মার্কেটে এই মাশরুম সরবরাহ করে।

বাংলাদেশের বড় শহরগুলোর বিভিন্ন হোটেল, সুপার শপগুলোতে ও চাইনিজ হোটেলগুলোতে মাশরুমের অনেক চাহিদা রয়েছে। ফলে মাশরুমের বাজার মূলত শহরে গড়ে উঠেছে। এছাড়া বিদেশেও এর চাহিদা থাকায় মাশরুম শুকিয়ে রপ্তানি করা হয়।

এসটিএমএ


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর