ধর্ষক রাম রহিমের মেয়ে হানিপ্রীতের জামিন

বিনোদন ডেস্ক   |   ১১:৪৫, নভেম্বর ০৮, ২০১৯

অবশেষে ভারতের জেল থেকে ছাড়া পেলেন স্বঘোষিত ধর্মগুরু ডেরা সচ্চা সওদা প্রধান গুরমিত রাম রহিমের দত্তক কন্যা হানিপ্রীত ইনসান।

এর আগে, ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে তাকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। এরপর তার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের অভিযোগ সরিয়ে দেয়ার পরই জামিনের আবেদন গ্রহণ করেন আদালত।

ওইসময় নানা অভিযোগের ভিত্তিতে রাম রহিমকে গ্রেপ্তার করার পর হানিপ্রীতকে কারাবন্দী করার দাবি উঠে। জানা যায়, হরিয়ানার পঞ্চকুলায় ব্যাপক সংঘর্ষের পেছনে তারই হাত ছিল। সেই হিংসার ঘটনায় প্রাণ গিয়েছিল প্রায় ৩০ জনের, আহত হয়েছিলেন দুইশত’র বেশি মানুষ।

এদিকে রাম রহিম সিং ভোগ করছেন যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। তবে তিনি হরিয়ানার ঘটনায় নয় বরং ২০০২ সালে সাংবাদিক রামচন্দ্র ছত্রপতিকে খুন করার অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত হন। এছাড়া তাকে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট দুই নারী ভক্তকে ধর্ষণের অভিযোগে করা দুটি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করা হয়। সেই মামলায় ২০ বছরের সাজা পেয়েছেন রাম রহিম।

সাংবাদিক রামচন্দ্র ছত্রপতিকে খুন করার নেপথ্যে জানা যায়, স্বঘোষিত ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়িকে চিঠি লিখেছিলেন সাধ্বীরা। সেই চিঠি নিজের পত্রিকায় ছাপান সাংবাদিক রামচন্দ্র। এই কারণেই প্রায় ১৭ বছর আগে নিজ বাসভবনের সামনে তাকে গুলি করে খুন করা হয়।

রাম রহিমের বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ, তিনি তার ডেরায় কমপক্ষে দুই হাজার নারীকে ধর্ষণ করেছেন!

নির্যাতিতাদের দাবি, রাম রহিমের বিলাসবহুল ডেরার ভেতর গোপন যৌন গুহা ছিল। সেই গুহার খোলা জানালা দিয়ে ডেরার মেয়েদের দেখে দেখে পছন্দ করতেন তিনি। তারপর তাকে নিয়ে ধর্ষণ করতেন। ধর্ষণের পর অন্তঃসত্ত্বা হলে মেয়েদের জোর করে গর্ভপাত করাতেন।

আগে তিনি হাজারো মেয়ের গর্ভপাত করিয়েছেন পাঞ্জাবের বাথিন্ডার বিভিন্ন এলাকায়। পরে রাম রহিম নিজেই তার ডেরার ভেতর হাসপাতাল চালু করে গর্ভপাত করাতেন।

জেডআই


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর