সিরাজদিখানে সরকারি বীজ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ)   |   ০৮:০৬, নভেম্বর ১৭, ২০১৯

সিরাজদিখানে রোপা আমনের আবাদ বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধকরণের জন্য উপজেলা পরিষদ থেকে ২ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। সেই বরাদ্ধকৃত টাকার অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা কৃষি অফিসের বিরুদ্ধে। কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে এই লক্ষ্যে সরকার প্রতিনিয়ত কৃষকবান্ধব কাজ করে যাচ্ছেন। আর সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ম্লান করে যাচ্ছে উপজেলা কৃষি অফিস।

জানাযায়, গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের উপজেলা পরিষদের উন্নয়ন তহবিল হতে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে কৃষি উপকরণ হিসেবে ব্রি ৫১/৫২ বীজ ধান বিতরণের জন্য ২ লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়। বরাদ্ধকৃত টাকা থেকে ৩৫০ জন কৃষকদের মাঝে ৫ কেজি করে বীজ বিতরণ করে যা ৫ কেজি বীজের বাজার মূল্য ১৯০ টাকা। বরাদ্দকৃত টাকার প্রায় ৭০ হাজার টাকা ব্যয় করে বাকী ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা উপজেলা কৃষি অফিসের সংশ্লিষ্টদের পকেটে। বাকী টাকা কোথায় খরচ হয়েছে তা সঠিক ব্যাখ্যা জানা সম্ভব হয়নি।

এভাবে সরকারি বরাদ্দকৃত টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে অসাধু কতিপয় কৃষি অফিসের কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্টরা। তাই কৃষিখাতে সরকারের নানা উদ্যোগ কাজে আসছে না। অনেকের অভিযোগ উপজেলা কৃষি অফিসের অফিসারদের সাথে ভালো সর্ম্পক থাকলে মিলে কিছু সরকারি সুযোগ সুবিধা।

কৃষি অফিসে কর্মরত একজন নাম না প্রকাশের শর্তে জানান, ৭০ হাজার টাকার ধান বীজ ছাড়া আমার জানামতে আর কোনাে সহযোগীতা কৃষকদের করা হয় নাই। ভুট্টা দেয়ার কথা থাকলেও তা দেয়া হয় নাই।

কৃষি বি এ ডি সি বীজ ডিলার মো.মোস্তাফিজু রহমান তালুকদার জানান, আমার দোকান হতে ৩০০ জনকে ৫ কেজি করে ধান দেয়া হয়েছে। যাহার প্রতি কেজি বাজার মূল্য ৩৮।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় বলেন, ৩৫০ জনকে ধান দিয়েছি কমিটির মাধ্যমে বন্টন করেছি। ১ লাখ ৩০ হাজার টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি পরিষ্কার করে বলতে পারেননি। তিনি পরে কথা বলবেন বলে জানান।

এমআর


আরও পড়ুন