মুন্সীগঞ্জে স্কুল ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ

আবু হানিফ রানা,মুন্সীগঞ্জ   |   ০২:৪৪, নভেম্বর ১৯, ২০১৯

মুন্সীগঞ্জে এসএসসি’র ফরম পূরনে টংগবিাড়ি উপজেলার সবকটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। অতিরিক্ত ফি আদায়ের নিষেধ থাকলে তা তোয়ক্কা না করে বিভিন্ন অযুহাত দেখিয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ।

শিক্ষা বোর্ডের দেয়া বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের এস এস সি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের জন্য কেন্দ্র ও ব্যবহারিক ফিসহ মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ফি ১৮৫৯ টাকা ও বিজ্ঞান শাখায় ১৯৭০ টাকা নির্ধারণ রয়েছে।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিবাবকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, টংগীবাড়ি উপজেলার দিঘীরপাড় এ সি ইনস্টিটিউশন এ ৪ হাজার টাকা, স্বর্ণগ্রাম আর এন উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ হাজার ৩ শত টাকা, বেতকা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫ হাজার টাকা নিচ্ছে এ ক্ষেত্রে ফরম পূরনের নামে অতিরিক্ত আদায়কৃত অর্থের কোনো রশিদ দিচ্ছেনা বিদ্যালয় কতৃপক্ষ।

দিঘীরপাড় এ সি ইনস্টিটিউশন এর এক শিক্ষার্থী বলেন, আমার বাবা একজন রিকশাচালক অনেক কষ্টে আমার বাবা এই টাকা জোগাড় করে দিয়ে আমার ফরম ফিলাপ করেছেন। স্বর্ণগ্রামের এক দ্ররিদ্র শিক্ষার্থী বলে আমার বাবা একজন দিন মজুর কিছু টাকা কম দিতে চেয়েছিল কিন্তু প্রধান শিক্ষক স্যার আমাকে ও আমার বাবাকে তাড়িয়ে দেন পরে দ্বার দেনা করে টাকা এনে পরীক্ষার ফরম পূরন করেছে।

বেতকা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী আমার সংবাদকে জানায়, সরকারী নিয়মে কতটাকা তা আমার জানা নেই ,স্যারেরা আমাদেরকে যা বলছে আমরা তাই মেনে বাবা-মাকে জানাচ্ছি আরা তারা কষ্ট করে টাকা দিয়ে আমাদের পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করছেন। পুরো টাকা না দিতে পারলে ফরম ফিলাপ করা যাচ্ছেনা।

এবিষয়ে একাধিক অভিভাবক আমার সংবাদকে জানান, আমরা শিক্ষকদের কাছে একপ্রকার জিম্মি রয়েছি কারন তারা যা বলে তাই করতে হচ্ছে আমাদের। যদি প্রতিবাদ করি তাহলে আমাদের সন্তানদের ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে বলে আমরা মুখ খুলতে পারিনা।

এস এস সির ফরম ফিলাপে অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে স্বর্নগ্রাম আর এন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল বাসেদ বলেন, স্কুল কমিটির মতামত নিয়েই ফরম ফিলাফের জন্য শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৪ হাজার ৩১৫ টাকা নেয়া হচ্ছে। এর মধ্য অতিরিক্ত ক্লাস, মিলাদ ও স্কুলের দপ্তরির জন্য বকশিস এর টাকাও রয়েছে।

বেতকা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মহিউদ্দিন আহম্মেদ অতিরিক্ত টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সরকারী বিধি অনুযায়ী টাকা আদায় করছি সেই সঙ্গে কোচিং বাবৎ টাকা ও নিচ্ছি।

এ বিষয়ে টেলিফোন আলাপে দৈনিক আমার সংবাদকে টংগীবাড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাসিনা আক্তার জানান, গত মিটিংয়ে সকল শিক্ষকদের বলা হয়েছিল এস এস সির ফরম ফিলাপে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে যেন কোন রকম অতিরিক্ত অর্থ আদায় না করা হয়। যদি কোন বিদ্যালয়ে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে ফরম ফিলাপে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হয়ে থাকে খোঁজ খবর নিয়ে সত্যতার আলোকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এমআর


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর