ভৈরবে প্রকৌশলীর প্রাণনাশে স্ত্রীসহ আটক ২

জামাল আহমেদ, ভৈরব   |   ০৩:৫৫, ডিসেম্বর ০১, ২০১৯

ভৈরবে চন্ডিবের গ্রামে নিজ শয়ন কক্ষে প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান প্রাণনাশে জড়িত স্ত্রী রোকসানা ও হাসিব নামে ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ । আটককৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে প্রাণনাশের কথা স্বীকার করেছে বলে পুলিশ জানায়।

প্রাণনাশে ব্যবহৃত ১টি ধারালো ছুরি এবং আসামির রক্তমাখা শার্ট, প্যান্ট ও চেতনা নাশক ঔষধের শিশি আলামত হিসেবে জব্দ করেছে পুলিশ।

রোববার আসামিদের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির জন্য পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে নিহতের বড় ভাই মো. হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামা ৩/৪ জনকে অভিযুক্ত করে ভৈরব থানায় ১টি হত্যা মামলা দায়েরের পর। শুক্রবার রাতেই পুলিশ হাসিবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

শুক্রবারও শনিবার ২ দিন ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে হাসিবের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি অনুযায়ী তার পরনের রক্তমাখা শার্ট, প্যান্ট জব্দ করে পুলিশ। এছাড়া আহত রোকসানাকে পুলিশ প্রহরায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আটক দেখানো হয়েছে।

পুলিশ জানায় পরকীয়ার জের ধরে বুধবার (২৮) নভেম্বর গভীর রাতে নিজ গৃহে স্ত্রী রোকসানা ও হাসিব পরিকল্পন করে রাতে এলোপাথারি ছুরিকাঘাদে তার প্রাণহনি হয় । প্রাণ হারানোর আগে হাসিব ঘুমের ঔষধ এনে রোকসানাকে দিলে ওই দিন রাতে রোকসানা পায়েসের সাথে তার স্বামীকে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে দিলে সে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে পড়লে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তারা ২ জন তাকে প্রাণ নিয়ে হয়েছে। প্রাণনাশের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য স্ত্রী ডাকাতির নাটক সাজায়।

এ বিষয়ে ভৈরব থানার ওসি (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার জানান, পরকীয়ার জের ধরে পরিকল্পিতভাবে স্ত্রী ও তার প্রেমিক হাসিব ঘুমের ঔষুধ খাইয়ে নিজ গৃহে মাহবুবুর রহমানের প্রাণ কেড়ে নেয় বলে আটককৃত রোকসানা ও হাসিব প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

আমরা হাসিবের রক্ত মাখা জামা-কাপড় ও চেতনা নাশক ঔষুধের শিশি ও প্রাণনাশে ব্যবহৃত ধারালো ছুরি আলামত হিসেবে জব্দ করেছি। এছাড়া আসামিদের ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য আদালতে প্রেরণ করেছি।

উল্ল্যেখ্য নিহত মাহবুবুর রহমান রেলওয়ে মেকানিক ইঞ্জিনিয়ার (লোকোশেড) হিসেবে কর্মরত ছিল।

এমআর


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর