‘বয়ঃসন্ধিকালে সন্তানের নজর রাখতে হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   ০৫:৪২, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৯

বয়ঃসন্ধিকালে সন্তানদের প্রতি বেশি নজর দেয়ার তাগিদ দিয়েছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। মঙ্গলবার ( ০৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে সিরাক বাংলাদেশ ও রাইট হেয়ার রাইট নাও বাংলাদেশ আয়োজিত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, তারা যেন না বুঝে না জেনে কোনো ক্ষতিকর পরিস্থিতিতে না পড়ে। বয়ঃসন্ধিকালে শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের বিষয়ে সন্তানদের জানাতে হবে। এটা খুবই প্রয়োজন।

মুরাদ হাসান বলেন, ‘আগামী প্রজন্মের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার। এখন ইউনিয়ন পর্যায়ের জনগণও ভালোমানের সেবা পাচ্ছে। স্বপ্নের দেশ গড়তে রাত-দিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার চিন্তা থেকেই এসেছে কমিউনিটি ক্লিনিক। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিটি সময়, চিন্তা-চেতনা দেশের জনগণকে নিয়ে। জনগণের স্বাস্থ্যসেবার কথা চিন্তা করে ১৯৯৮ সালে তিনি কমিউনিটি ক্লিনিক গড়ে তোলেন, যা বিশ্বের মাঝে প্রথম ধারণা। ইউনিয়ন পর্যায়ে মা ও শিশু স্বাস্থ্যসেবাকেন্দ্র চালু করেছেন। প্রান্তিক পর্যায়ে সব সেবা দেওয়া হচ্ছে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচনে আমাদের প্রতিশ্রুতি ছিল জনগণের দোরগোড়ায় ভালোমানের স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়া। সরকার ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলায় মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছে, হাসপাতালগুলোতে ভালোমানের চিকিৎসা নিশ্চিত করা হচ্ছে।’

দেশে এখন ১৪০০ কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে জানিয়ে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সারাদেশে মোট ১৮ হাজার কমিউনিটি হবে। স্বাস্থ্যসেবা দেশের মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে বর্তমান সরকার কাজ করছে।’

তিনি বলেন, ‘এক্ষেত্রে যুব-সমাজের মাঝে দেশপ্রেম জাগ্রত করতে হবে। যুবক-তরুণের মাঝে দেশপ্রেম বাড়লে দেশ আরও এগিয়ে যাবে।’

জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, ‘প্রযুক্তিকে ভালো কাজে ব্যবহার করতে হবে। অসত্য তথ্য যেন না ছড়ায় সে ব্যাপারে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। প্রজনন স্বাস্থ্য নিয়ে এখন সরকার বেশ প্রচার চালাচ্ছে। স্কুলের পাঠ্যবইতে এটা অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এর মাধ্যমে অনেক কুসংস্কার দূর হচ্ছে।’

এফপি ২০২০ সিএসও ফোকাল পয়েন্ট বাংলাদেশ ড. আবু জামিল ফয়সাল বলেন, ‘পরিবার-পরিকল্পনার বিষয়গুলো সমাজে ব্যাপকভাবে প্রচার ও বিস্তৃত করতে যুবকদের অংশগ্রহণ অনস্বীকার্য। আমাদের এ ব্যাপারে ব্যাপক প্রচার চালাত হবে।’

বাংলাদেশে ভয়েস অব আমেরিকার প্রধান ভিডিও রিপোর্টার নাসরিন হুদা বীথি বলেন, ‘অনেক কিশোরী সংকোচে শারীরিক পরিবর্তনের কথা জানায় না। এ থেকে বের হয়ে আসতে হবে। পরিবারকে খোলামেলাভাবে জানাতে হবে।’

সিরাক বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক এসএম সৈকত বলেন, ‘যুববান্ধব স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে তরুণ সাংবাদিক ও চিত্রগ্রাহকদের উদ্যমী করে তুলতে কিশোর-কিশোরী ও তরুণদের মাঝে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। তরুণদের মাঝে থেকে ভিডিওচিত্র এবং তরুণদের স্বাস্থ্য নিয়ে প্রকাশিত সংবাদ আহ্বান করা হয়। সারাদেশ থেকে নির্বাচিত এসব ভিডিও ও তরুণদের স্বাস্থ্য নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের মধ্য থেকে তিনজন তরুণ সাংবাদিক এবং তিনজন তরুণ চিত্রগ্রাহককে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘আমরা যারা বিভিন্ন ভিডিও বানাচ্ছি সেখানে যেন ভালো কোনো ম্যাসেস থাকে। তরুণদের স্বাস্থ্যসেবার বিভিন্ন মতামত যেন উঠে আসে এ ব্যাপারে আমাদের সচেতন থাকতে হবে। আশা করি প্রতি বছর এসমনভাবে আমরা বিজয়ীদের সম্মানিত করতে পারবো।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রোগ্রাম অফিসার তাসনিয়া আহমেদ, অ্যাসোসিয়েট প্রোগ্রাম অফিসার নুসরাত শারমিন রেশমা ও প্রোগ্রাম অফিসার রোকনুল রাব্বি প্রমুখ।

বিজয়ী তরুণ চিত্রগ্রাহক হলেন মো. বিপ্লব হোসেন (ঢাকা), মো. তাহমিদ হোসেন (রাজশাহী), মো. জাওয়াদ হোসেন (চট্টগ্রাম)।

তরুণদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য এবং অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষে যুবকদের আরও উদ্যমী করে তুলতে যুববান্ধব সেবা বিষয়ে তরুণ সাংবাদিক ও চিত্রগ্রাহক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও প্রদর্শনী নিয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এমএইচ/এমএআই


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর