লালবাগে পুলিশ সোর্স বিল্লাল আটক

প্রিন্ট সংস্করণ॥নিজস্ব প্রতিবেদক   |   ০৩:০৮, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯

রাজধানীর পুরান ঢাকায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার বৈধতার কার্ড বিক্রি করে মাসে আয় কোটি টাকা শিরোনামে প্রতিবেদনে আলোচিত পুলিশ সোর্সকে আটক করেছে পুলিশ। তার নাম বিল্লাল হোসেন ওরফে ফরমা বিল্লাল বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় কোটা শহীদ নামে তার এক সহযোগীকেও পুলিশ আটক করেছে।

সূত্র জানায়, নগরীর বিভিন্ন এলাকায় প্যাডেলচালিত রিকশার পরিবর্তে ব্যাটারিচালিত যান্ত্রিক রিকশা চলাচল করলেও এর কোনো বৈধতা নেই। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে নগরীর হাজারিবাগ, মোহাম্মদপুর, কামরাঙ্গীরচর, লালবাগ, চকবাজার, কোতোয়ালি ও বংশালসহ বিভিন্ন এলাকায় বৈধতার কার্ড বিক্রি করে আসছে একটি প্রতারকচক্র। প্রতারক চক্রটি রিকশার মালিকদের কাছ থেকে প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা চাঁদাবাজি করে।


সম্প্রতি সরকারদলীয় এক কর্মীকে গুলি করার অভিযোগে সোহরাব নামে এক কার্ড বিক্রেতাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এরপর স্থানীয় পুলিশ সোর্স বিল্লাল, কোটা শহীদ ও এক সাংবাদিকসহ স্থানীয় নেতাদেরও চাঁদাবাজির ভাগবাটোয়ারার সাথে জড়িত থাকার চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। আর সেই তথ্যের ভিত্তিতেই গতকাল রাতে লালবাগ থানা পুলিশ তাকে আটক করেছে বলে জানা গেছে।

সুত্র জানায়, সরকারদলীয় অঙ্গ সংগঠনের কতিপয় নেতা অটোরিকশা চলাচলের বৈধতার নামে কার্ড বিক্রি করে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, এই কার্ড বিক্রির টাকা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মাসোয়ারা দেয়ার নামে আদায় করছেন। আর তাদের ম্যানেজ করেন পুলিশ সোর্স পরিচয়দানকারী বিল্লাল। এই বিশেষ টোকেন অটোরিকশার চালকের কাছে থাকলে রাস্তায় চলতে বাধা নেই এসব রিকশার।

অটোরিকশার মালিকরা বলছেন, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার পরিচয় নিয়ে সমস্যা হচ্ছে। এগুলো রিকশা নয়, আবার মোটরযানও নয়। এজন্য এর বৈধতার ছাড়পত্র দেয়া হয় না। কিন্তু চাঁদাবাজদের টাকা দিলেই এগুলো বৈধ হচ্ছে। আর না দিলেই পাড়া-মহল্লা থেকে বের হতে দেয়া হয় না।

এই নিয়ম গত ২০০৮ সাল থেকেই চলছে। পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চালক ও গ্যারেজ মালিকদের সঙ্গে কথা বলে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে।

আর তা হচ্ছে, যুবলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক ও বহিষ্কৃত কাজী আনিছুর রহমান আনিছের অন্যতম সহযোগী লালবাগ এলাকার এক নেতা ও সোহরাব হোসেন এবং কে কে বাহিনীর প্রধান কালা খোকনের সাবেক সহযোগী গাফফার অটোরিকশার কার্ড বিক্রি করছেন।

প্রতিটি অটোরিকশার মালিকের কাছে এক মাসের জন্য একটি কার্ড বিক্রি করা হয় ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা পর্যন্ত। তারা লালবাগ, চকবাজার, কামরাঙ্গীরচর, হাজারিবাগ ও বংশাল থানা এলাকায় চলাচলের জন্য অটোরিকশার পাস কার্ড বিক্রি করে। এ সংক্রান্ত দৈনিক আমার সংবাদে এক প্রতিবেদন প্রকাশের পর পুলিশ সোর্স বিল্লাল প্রতিবেদককে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেয়।

স্থানীয়রা জানায়, সোর্স বিল্লাল এলাকায় পুলিশের সঙ্গে সখ্যতার পরিচয়ে মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্নভাবে এলাকার লোকজনকে মিথ্যা অভিযোগে হয়রানি করে আসছে। গতকাল রাতে লালবাগ থানা পুলিশ তাকে আটক করে।

এ ব্যাপারে লালবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সফিউদ্দিন আমার সংবাদকে বলেন, একটি বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে তাকে থানায় আনা হয়েছে।

এসটিএমএ


আরও পড়ুন

সর্বশেষ সংবাদ

সব খবর