ধর্ষণের পর থানায় বিয়ে, সেই আ.লীগ নেতা গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১৮:০২, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯

পাবনায় গণধর্ষণের পর গৃহবধূকে থানা চত্বরে বিয়ে দেয়ার ঘটনায় মামলা দায়েরের পর স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা শরিফুল ইসলাম ঘন্টুকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শরিফুল ইসলাম দাপুনিয়া ইউপি আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক। টেবুনিয়া ছিটগোডাউনের পাশে তার অফিসেই গৃহবধূকে তিনদিন আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বুধবার (১১সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় ঈশ্বরদীর মুলাডুলি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পাবনা সদর উপজেলার সাহাপুর যশোদল গ্রামের এক নারীকে গত ২৯ আগস্ট রাতে একই গ্রামের আকবর আলীর ছেলে রাসেল আহমেদ চার সহযোগীকে নিয়ে অপহরণ করে টানা চারদিন ধরে গণধর্ষণ করে।

পরে গৃহবধূ বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ অভিযুক্ত রাসেলকে আটক করলেও মামলা নথিভুক্ত না করে ধর্ষিতাকে তার সাথে থানা চত্বরে বিয়ে দিয়ে ঘটনা মীমাংসার চেষ্টা চালায়।

মঙ্গলবার গ্রেপ্তারকৃত রাসেলকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনায় ওসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থাসহ প্রশাসনের সার্বিক পদক্ষেপে নজর রাখছেন হাইকোর্ট।

বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের বেঞ্চে এ ঘটনার প্রকাশিত খবর তুলে ধরে সদর থানার ওসির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে স্বপ্রণোদিত আদেশ চান সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবী।

তখন বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারক এম ইনায়েতুর রহিম বলেন, ‘মিডিয়ার মাধ্যমে আমরাও বিষয়টা নজরে রাখছি।’

আদালতে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ তুলে ধরেন আইনজীবী জামিউল হক ফয়সাল; সঙ্গে ছিলেন গাজী ফরহাদ রেজা ও রোহানী সিদ্দিকা।

পরে ফয়সাল গণমাধ্যমকে বলেন, “পাবনার বিষয়টি নিয়ে কিছু পত্রিকার প্রকাশিত নিউজ কোর্টের নজরে এনেছিলাম।

আদালত বললেন যে, এ বিষয়ে তো ইতিমধ্যে প্রশাসন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে; ওসিকে শোকজ করা হয়েছে। এটা নিয়ে আপনারা আবার কেন আসছেন?

“তখন আমি বললাম, ওসিকে শোকজ করা হয়েছে ঠিক। কিন্তু আজকের পত্রিকায় এসেছে বিয়ের কাজি, যিনি বিয়েটা পড়াতে অসম্মতি জানিয়েছিলেন, তাকে এবং ভিকটিমের পরিবারকে প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন ওসির লোকজন।

ওই ওসি যদি ওই থানায় দায়িত্বে বহাল থাকে তাহলে তদন্তটি ভিন্ন দিকে মোড় নিতে পারে, তদন্ত ভিন্ন দিকে প্রবাহিত হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

“তখন আদালত বলেন যে, যেহেতু এটা প্রশাসনিক বিষয় এবং যেহেতু কর্তৃপক্ষ অ্যাকশন নিচ্ছে, দেখেন প্রশাসন কী ব্যবস্থা নেয়।

যদি প্রশাসনের ব্যবস্থা সন্তোষজনক না হয় তখন আপনারা আগামী সপ্তাহে আসেন আমরা দেখব।

আদালত এও বলেছেন, মিডিয়ার মাধ্যমে আমরাও বিষয়টা নজরে রাখছি।”

এমএআই