শিরোনাম

অক্টোবরেই পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা তুলবে ভারত

নিজস্ব প্রতিবেদক   |  ১০:০৯, অক্টোবর ১৪, ২০১৯

অক্টোবরের শেষ দিকেই পেঁয়াজ রফতানি নিষেধাজ্ঞা ভারত তুলে নিতে পারে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। ফলে পেঁয়াজের বাজার শিগগিরই স্বাভাবিক হবে।

সোমবার (১৪ অক্টোবর) সচিবালয়ে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বস্ত্র খাতের সামগ্রিক বিষয়ে আলোচনা ও ‘জাতীয় বস্ত্র দিবস-২০১৯’ উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় কমিটির সভার আগে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলেছে এ মাসের শেষ নাগাদ তাদের দেশ থেকে পেঁয়াজ আমাদেরকে দেয়ার চেষ্টা করবে। তবে আমি যতদূর জানি ভারতীয় বাজারেও পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি হয়েছে। সেখানেও ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে।

এই ভোগান্তি কতদিন থাকবে এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, দেখুন প্রধানমন্ত্রী নিজেও বলেছেন আমাদের সাধারণ মানুষদের একটু ধৈর্য ধরতে হবে। হয়তো এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে একটু সময় লাগবে। তবে আমরা যথাসম্ভব দ্রুততম সময়ের মধ্যে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, পেঁয়াজের দাম ইস্যুতে এখন আমরা শক্ত অবস্থানে যাবো। কারণ ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কথা নয়। আমাদের পেঁয়াজের প্রধান উৎস ভারত থেকে পেঁয়াজের আমদানি যখন বন্ধ হয় তার কমপক্ষে পাঁচ ছয় দিন পরে ঘাটতি সৃষ্টি হওয়ার কথা। এবং তখন পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কথা। কিন্তু আমরা যেটা দেখলাম ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশ পেঁয়াজের দাম বেড়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সারাদেশে পেঁয়াজের বাজারগুলো এবং স্টক কতটুকু কোথায় কিভাবে আছে সেটা দেখার জন্য দশটি কমিটি করে দিয়েছিলাম। আমি কয়েকদিন বিদেশে ছিলাম, আজকে সকালে এসেছি। আমি আজই এই কমিটিগুলোর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করব।

টিপু মুনশি বলেন, এক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের কারসাজি রয়েছে। ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ার বিষয়টিকে পুঁজি করে নিয়েছে। আমদানি বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের দেশে যা স্টক ছিল সেটা কাজে লাগালে পেঁয়াজের দাম বাড়তো না।

মিয়ানমারের সঙ্গে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমাদের মনস্তাত্ত্বিক দূরত্বের পরেও তাদের কাছ থেকে পেঁয়াজ নেয়ায় মিয়ানমার আমাদেরকে দুর্বল মনে করবে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, না এটা ঠিক নয়। তাদের সঙ্গে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমাদের কিছু ডিলিংস থাকলেও আগে থেকে তাদের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্যিক সম্পর্ক ভালো। রোহিঙ্গা ইস্যুতে তো আর সবকিছু থেমে থাকার থাকতে পারে না।

বাজারে পিঁয়াজের দাম বেশি অথচ আরদগুলোতে পেঁয়াজ পৌঁছে যাচ্ছে ব্যবসায়ীরা এসব পেঁয়াজ আটকে রেখেছে। এমন প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা এ বিষয়টি নিয়ে আজ বসছি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে ব্যবসায়ীরা যাতে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করতে না পারে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব।

বিএইচ/এমএআই

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত