শনিবার ২৪ অক্টোবর ২০২০

৯ কার্তিক ১৪২৭

ই-পেপার

নিজস্ব প্রতিবেদক

সেপ্টেম্বর ২৯,২০২০, ০২:২৮

সেপ্টেম্বর ২৯,২০২০, ০২:২৮

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত কাল

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলবে কি না এবং এইচএসসি পরীক্ষা কবে সম্পন্ন করা যাবে, এসব নিয়ে সরকারের সার্বিক সিদ্ধান্ত জানাতে বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।

ওইদিন এ বিষয়ে দুপুর ১২টায় সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সার্বিক তথ্য তুলে ধরবেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, করোনার কারণে এইচএসসি পরীক্ষাসহ শিক্ষা বিষয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে। বিশেষ করে, বছর প্রায় শেষের দিকে চলে আসার পরেও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে উদ্বিগ্ন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। বিভিন্ন শ্রেণিতে বার্ষিক পরীক্ষা হবে কি না, তা নিয়েও নানা শঙ্কা আছে। এসব নিয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা কাটাতেই এ সংবাদ সম্মেলন হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টানা ছুটি এবং স্থগিত থাকা এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে সোমবার জানতে চাইলে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, করোনার এ সময় সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে ক্ষমতা দেয়া হলেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা বা এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে মন্ত্রণালয় মন্ত্রিসভা বা প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ চাইলে তা জানানো হবে।

সচিব বলেন, আমরা বলে দিয়েছি, যে কোনো সেক্টর রেসপেক্টিভ মিনিস্ট্রিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। যারা কর্তৃপক্ষ তারা নিজ বিবেচনায় ব্যবস্থা নেবেন।

এদিকে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে এইচএসসি পরীক্ষার আয়োজন করতে চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ পরীক্ষা আয়োজনে শিক্ষাবোর্ড থেকে তিনটি প্রস্তাব তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কিছু কমে এলে চলতি বছরেই পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা করা হচ্ছে। আর সে প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছে শিক্ষা বোর্ডগুলো। মন্ত্রণালয়ে যে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে, তার পেছনের কারণও ব্যাখা করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়াতে বলা হয়েছে। আর সময় কম থাকার কারনে সিলেবাস ও নম্বর কমাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগের মূল বিষয়গুলোর পরীক্ষা নিয়ে মূল্যায়নের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট দেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে এখনই কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি, প্রস্তাব পর্যলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
 
শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বিপাকে রয়েছে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নিয়ে। ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি পরীক্ষা গ্রহণ করা গেলেও ১ এপ্রিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নেওয়ার কথা ছিলো। যা করোনাভাইরাসের কারনে স্থগিত করা হয়।

ফলে গত ছয় মাসেও এই পরীক্ষা গ্রহণ সম্ভব হয়নি। এদিকে চলতি শিক্ষাবর্ষও শেষের দিকে। এই পরিস্থিতিতে কীভাবে পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে, সে করনীয় ঠিক করতে আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ডকে পরিকল্পনা করে প্রস্তাব তৈরি করতে বলা হয়। সে অনুযায়ী গত ২৪ সেপ্টেম্বর বৈঠক করে তিনটি প্রস্তাব পাঠানো হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে।

আমারসংবাদ/এআই