শিরোনাম

জাফলং ভ্যালী বোর্ডিং স্কুলের প্রথম বর্ষপূর্তি উদযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক   |  ১১:১৩, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল সিলেটে প্রতিষ্ঠিত সম্পূর্ণ আবাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘জাফলং ভ্যালী বোর্ডিং স্কুল’র প্রথম বর্ষপূর্তি উদযাপন করা হয়েছে। কেক কেটে ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে স্কুলটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও সিলেট-৫ আসনের সাংসদ হাফিজ আহমেদ মজুমদার।

প্রতিষ্ঠান পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ. কে. আজাদের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ বিরাজ কিশোর ভরদ্বাজ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাফিজ আহমেদ মজুমদার বলেন, আমি বর্তমানে বিশ্বের সব থেকে ধনী ব্যক্তি। কারণ আমার এত সব ভালো বন্ধু রয়েছে। আমি বিশ্বাস করি চার থেকে পাঁচ বছরের মধ্যে এই স্কুলটি সুনাম কুড়াবে। এই স্কুল থেকে এমন শিক্ষার্থীদের বের করতে চাই, যারা ভবিষ্যতে দেশকে ও পৃথিবীকে নেতৃত্ব দেবে। আমি বিশ্বাস করি বোর্ডিং স্কুল নেতৃত্ব সৃষ্টির উৎকৃষ্ট স্থান।

আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সদস্য ও ওপেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ. আর. সিনহা বলেন, আগামীতে দেশকে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য দক্ষ জনশক্তি দরকার। এই প্রতিষ্ঠানটি সেই দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। আমাদের দেশের অনেক শিক্ষার্থী দেশের বাইরে পড়তে যায়। বাংলাদেশে একটি আন্তর্জাতিক মানের বোর্ডিং স্কুল থাকলে তারা আর দেশের বাইরে পড়তে যেত না।

তিনি বলেন, দেশের শিক্ষার্থীরা যেন বিদেশে পড়তে না যায়, আমরা এই লক্ষেই কাজ করে যাচ্ছি। নতুন স্কুল হিসেবে এখনো কিছু সমস্যা রয়েছে। দ্রুত এসব সমস্যা মোকাবেলা করে স্কুলটি বিশ্ব মানের বোর্ডিং স্কুল হয়ে উঠবে বলে আমার বিশ্বাস।

পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও নিট এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক মতিন চৌধুরী বলেন, যখন কোন একটি বড় কাজের উদ্যোগ নেয়া হয় তখন প্রয়োজন হয় অনেক মানুষের সহযোগিতা। প্রয়োজন হয় নেতৃত্বের। এই কাজটি সুচারুভাবে করেছেন হাফিজ ভাই। তিনি ১৫০ একর জমি দিয়েছেন স্কুলের জন্য। স্কুলটি এগিয়ে যাচ্ছে এর উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করি।

সভাপতির বক্তব্যে এ. কে. আজাদ বলেন, অনেকদিন ধরেই হাফিজ ভাই একটি বোর্ডিং স্কুল করার স্বপ্ন দেখেছেন। কারণ দেশের সামর্থবান পরিবার ছেলেমেয়েকে দেশের বাইরে পড়তে পাঠায়। কিন্তু যাদের সামর্থ নেই তারা দেশেই পড়তে চায়। তাদের পড়ার সুযোগ করে দিতেই তিনি এ স্বপ্ন দেখেছেন। তার স্বপ্ন পূরণ করতেই আমরা অনেকেই একসঙ্গে হই।

তিনি বলেন, স্কুলটি প্রতিষ্ঠার এক বছর অতিবাহিত হলেও এখনো অনেক সমস্যা রয়ে গেছে। আমি বিশ্বাস করি, কয়েক বছরের মধ্যেই স্কুলটি দাঁড়িয়ে যাবে। দেশের বাইরে থেকেও শিক্ষার্থী পড়তে আসবে।

স্বাগত বক্তব্যে অধ্যক্ষ বিরাজ কিশোর ভরদ্বাজ স্কুলটির বিশেষত্ব তুলে ধরেন। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের দর্শন ও লক্ষ নিয়েও আলোচনা করেন তিনি।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন, প্যারাগন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মশিউর রহমান, শারমিন গ্রুপের এমডি ইসমাইল হুসাইন, মাহিন গ্রুপ অব কোম্পানিজেরর এমডি আবদুল্লাহ আল মাহমুদ প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে বর্ষপূর্তি কেক কাটা হয়। এরপর অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। স্কুলটি নিয়ে একটি ডকুমেন্টারিও প্রদর্শিত হয়। অনুষ্ঠানে স্কুলটির শিক্ষক-শিক্ষার্থী, পরিচালনা পর্ষদের সদস্যসহ অভিভাবকরাও উপস্থিত ছিলেন।

আরএম/আরআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত