শিরোনাম

বিশ্বের বৃহত্তম শিশুবলির ইতিহাস

আমার সংবাদ ডেস্ক  |  ১৪:১৬, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯

পেরুর শহর হুয়ানচাকোতে একদল প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কার করেছেন বিশ্বের বৃহত্তম শিশুবলির ইতিহাস৷ 

ডয়েচে ভেলে বলছে, বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) হুয়ানচাকোতে ২২৭টি শিশুর কঙ্কাল আবিষ্কার করেছেন এক দল প্রত্নতাত্ত্বিক৷ সেখানে চিমু গোষ্ঠীর শিশুবলির ইতিহাসের সূত্র খুঁজে পেয়েছেন বলে সংবাদসংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন গবেষক ফেরেন কাস্তিয়ো৷

default

বিজ্ঞানীরা অনুমান করেন, ৯০০ থেকে ১২০০ খ্রিস্টাব্দে পেরুর এই অঞ্চলে থাকত চিমু গোষ্ঠীর মানুষ৷ তাদের সংস্কৃতিতে ছিল গণহারে শিশুবলির রীতি৷

default

প্রত্নতাত্ত্বিকরা জানাচ্ছেন, এই গোষ্ঠীর ইতিহাসে রয়েছে প্রাপ্তবয়স্কদের বলি দেবার রীতিও৷ আবহাওয়ার দেবতাকে তুষ্ট করতেই এই গণবলির আয়োজন করা হতো বলে অনুমান করছেন তাঁরা৷

default

ইতিহাস বলছে, চিমু গোষ্ঠীর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিক ছিল রোদে পোড়ানো ইট দিয়ে সেই সময়ের সবচেয়ে বড় শহর গড়ে তোলা৷ এছাড়াও, শিল্পচর্চা ও সেচ ব্যবস্থা্র দিক দিয়ে অনেকটাই উন্নত ছিল এই গোষ্ঠী বলে জানা গেছে৷

default

১৯৯৭ সালে ‘পুন্টা লোবোস কাণ্ড’র খোঁজ পান প্রত্নতাত্ত্বিকেরা৷ সেই বছরই খুঁজে পাওয়া যায় ২০০টি শব৷ জানা যায়, ‘পুন্টা লোবোস কাণ্ড’র অংশ হিসাবে ১৩৫০ খ্রিষ্টাব্দে ২০০ জন মৎস্যজীবীকে বলি দেওয়া হয়েছিল৷

default

গবেষকেরা বলছেন, ১৪০০ খ্রিষ্টাব্দ নাগাদ ইনকা সম্প্রদায়ের দাপটে শেষ হয়ে যায় চিমুদের রাজত্ব৷ তার ঠিক ৫০ বছরের মধ্যেই স্পেনীয়দের দখলে চলে আসে সেকালের চিমু অঞ্চল৷

আরআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত