শিরোনাম

কেন লাইসেন্স বাতিল হবে না, নোটিস পেল জিপি-রবি

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ২২:৩৮, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯

দেশের বড় দুই মোবাইল অপারেটরের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের পাওনা আদায়ে নতুন পদক্ষেপ নিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

সংস্থাটি গ্রামীণফোন (জিপি) ও রবি আজিয়াটাকে নোটিস দিয়ে তাদের লাইসেন্স কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, নোটিসের জবাব দেয়ার জন্যে ৩০ দিন সময় দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০১ এর ৪৬(২) ধারা অনুসারে অপারেটর দুটির টুজি ও থ্রিজির লাইসেন্স বাতিল বিষয়ে বলা হলেও ফোরজি নিয়ে কোনো কথা বলা হয়নি। “আইনগত সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেই আমরা এই নোটিস ইস্যু করালাম। এখন তারা জবাব দিক,” বলেন জহুরুল।

তিনি বলেন, অডিটের মাধ্যমে নিষ্পত্তি হওয়া জনগণের টাকা দফায় দফায় চাওয়ার পরেও দিচ্ছে না দুই মোবাইল ফোন অপারেটর। সে কারণে বাধ্য হয়ে আইনের ধারা মেনে কারণ দর্শানোর নোটিস ইস্যু করা হলো।

১৯৯৭ সালে অপারেটর দুটির কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত হিসাবের ওপর অডিট করে বিটিআরসি। পরে বিটিআরসি গ্রামীণফোনের কাছে ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে বলে দাবি করে। একই সঙ্গে রবির কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা পাওনা দাবি তাদের।

অপারেটর দুটি বারবার অডিটের মাধ্যমে উত্থাপিত হওয়া দাবি নিয়ে নতুন করে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছে। তবে বিটিআরসি সে আবেদনে সাড়া দেয়নি।

বিটিআরসি বলছে, অপারেটরদের ব্যাখ্যার ওপর এখন তাদের ভাগ্য নির্ভর করছে।

বিটিআরসি নোটিস পাঠানোর পর এক বিবৃতিতে গ্রামীণফোন বলেছে, “বিটিআরসির নোটিসটি অযৌক্তিক। সেই সঙ্গে একটি বিতর্কিত অডিট দাবির বিষয়ে আমাদের গঠনমূলক সমাধান প্রস্তাবের বিপরীতে তাদের অনীহার আরেকটি বহিঃপ্রকাশ। নোটিসটি পর্যালোচনা করার পর গ্রামীণফোন এ বিষয়ে উত্তর দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

“আমাদের প্রতিষ্ঠান, শেয়ারহোল্ডার ও সম্মানিত গ্রাহকদের অধিকার রক্ষায় নিয়ন্ত্রক সংস্থার অন্যায্য যে কোনো পদক্ষেপের বিরুদ্ধে আমরা প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহণ করব।”

আর রবি আজিয়াটা লিমিটেডের চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার শাহেদ আলম বলেছেন, “লাইসেন্স বাতিলের কারণ দর্শানোর নোটিস টেলিযোগাযোগ খাতে বিনিয়োগকারীদের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া এবং গ্রাহকদের মধ্যে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করবে। যথাসময়ে আমরা কারণ দর্শানোর নোটিসের জবাব দেব।”

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত