শিরোনাম

ফেনীতে ‘সেক্স ফেরোমন ফাঁদ’ পদ্ধতিতে পোকা দমন

মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, ফেনী  |  ২২:৫৫, জুলাই ০২, ২০১৯

ফেনীর দাগনভূঞায় সবজি ক্ষেতের পোকা দমনে বিষমুক্ত ‘সেক্স ফেরোমন ফাঁদ’ পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে পোকা দমন করা হচ্ছে। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে কীটনাশক ব্যবহার ছাড়া কম খরচে সবজি ক্ষেতের পোকা দমন করা যায়। স্বল্প খরচ হওয়ায় এটি এ অঞ্চলে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

এ ক্ষেত্রে উৎসাহ যোগাচ্ছে স্থানীয় কৃষি বিভাগ। দাগনভূঞা উপজেলার পূর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের চাষীরা জানান, কুমড়া জাতীয় ফসলের সবচাইতে ক্ষতিকর পোকা হল মাছি পোকা। এ পোকা দমনের জন্য অনেক কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয়। এতে একদিকে উৎপাদন খরচ বেশি, অপরদিকে পরিবেশেরও যথেষ্ট ক্ষতি হয়।

কৃষি বিভাগের পরামর্শে কীটনাশক ব্যবহার না করে জৈব সার ও সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহার করছি। খরচ কমেছে ও পোকাও বেশি মারা যাচ্ছে। পাশাপাশি বিষমুক্ত সবজিও খেতে পারছি। বাজারে বিষমুক্ত সবজির চাহিদাও বাড়ছে।

দাগনভূঞা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে দেখা গেছে, চিচিঙ্গা ও কুমড়া জাতীয় ফসলের চাষে স্থানীয় চাষীরা ব্যাপক হারে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহার করছেন। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মারুফ বলেন, সেক্স ফেরোমন ফাঁদে স্ত্রী পোকার গন্ধযুক্ত একটি লিউর প্লাস্টিকের বয়ামে ব্যবহার করা হয়।

চাষীরা যাকে তাবিজ বলে থাকেন। এ লিউরের গন্ধে পুরুষ পোকা ফাঁদের ভিতর প্রবেশ করে উড়াউড়ি করতে থাকে এবং প্লাস্টিকের বয়ামে বাধা পেয়ে পাখায় আঘাত পেয়ে নিচে পড়ে যায়।

বয়ামের নিচে যেহেতু সাবান গুড়া পানি ব্যবহার করা হয় তাই পোকা আর উড়তে পারে না এবং ফাঁদে পড়ে মারা যায়।

দাগনভূঞা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. রাফিউল ইসলাম বলেন, কুমড়া জাতীয় সবজিতে মাছি পোকার আক্রমণ বেশি দেখা যায়। এ পোকা দমনে কীটনাশক স্প্রে করে কাজ হয় না।

কীটনাশক ব্যবহারের ফলে পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি পরিবেশে বিদ্যমান উপকারী পোকাও মারা যাচ্ছে। কুমড়া জাতীয় সবজির মাছি পোকা দমনের একটি কার্যকরী পদ্ধতি হচ্ছে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহার করা। এতে কৃষকরা কম খরচে পোকা দমন করতে পারবেন ও বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করতে পারবেন।

কৃষকরা আর্থিক লাভবান হবেন। উৎপাদন খরচ কমে আসবে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আরো বলেন, অতিরিক্ত কীটনাশক পরিবেশের পাশাপাশি মানব স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

এ ব্যাপারে কৃষি বিভাগ মৌসুম শুরুর প্রথমেই চাষীদের জৈব সার ব্যবহার ও সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহারের বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় এবং নিয়মিত মনিটরিং করা হয়।

ফেনী জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. জয়েন উদ্দিন জানান, ফেনীর ছয় উপজেলায় কৃষকদের মাঝে পরিবেশবান্ধব ‘সেক্স ফেরোমন ফাঁদ’ প্রযুক্তিটি আরও জনপ্রিয় করার জন্য রাজস্ব প্রকল্প ও ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ-২ প্রজেক্ট এবং নোয়াখালী ফেনী লক্ষ্মীপুর চট্টগ্রাম ও চাঁদপুর কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প মাধ্যমে কৃষকদের মাঝে প্রদর্শনী করে বিনামূল্যে এ ফাঁদ বিতরণ করা হয়েছে।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত