শিরোনাম

‘আন্তর্জাতিক মানের কাজ দেয়াই ছিলো টার্গেট’

প্রিন্ট সংস্করণ॥আল কাছির  |  ০২:০৮, মে ২৬, ২০১৯

এবারের ঈদে ‘ট্র্যাপড’ শিরোনামের একটি ওয়েব সিরিজ নিয়ে দর্শকের মাঝে আসছেন এ প্রজন্মের চিত্রনায়িকা আইরিন সুলতানা। আসাদ জামানের রচনায় ওয়েব সিরিজটি পরিচালনা করেছেন চলচ্চিত্র নির্মাতা সৈকত নাসির।

ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে চিত্রায়ণ হয়েছে পুরো সিরিজটির। এতে আইরিন ছাড়া আরও অভিনয় করেছেন ফেয়ার অ্যান্ড হ্যান্ডসাম রিয়েলিটি শো খ্যাত এ. কে. আজাদ, আমান রেজা, ফারহান লিওসহ আরও অনেকে।

ওয়েব সিরিজে ‘সুমি’ চরিত্রে অভিনয় করেছেন আইরিন। চরিত্র ও গল্প প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সুমি বাংলাদেশের নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের একজন মেয়ে। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ের মাধ্যমে ইন্দোনেশিয়ায় থাকা এক ছেলের সঙ্গে পরিচয় হয় তার।

পরিচয় থেকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠায় ছেলেটি, ওভার ফোনে বিয়ে হয় তাদের। বিয়ের পর ইন্দোনেশিয়া চলে যায় সুমি। এয়ারপোর্টে তাকে রিসিভ করে তার স্বামী। এয়ারপোর্টে স্বামীকে পেয়ে উচ্ছ্বসিত হয় সুমি। তারপর থেকে একের পর এক ট্র্যাপে পড়তে থাকে মেয়ে। এভাইে এগিয়ে যায় গল্প।’

টিজারটির মুক্তিকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছে প্রচার। এরই মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে টিজার। প্রকাশের পর বেশ আলোচনার জন্ম দিয়েছে টিজারটি। আইরিন মনে করেন, ওয়েব সিরিজের টিজার দেখে দর্শকের ভালো লাগলেই অনলাইন প্ল্যাটফর্মে গিয়ে সিরিজটি দর্শক দেখবে।

দর্শক আকৃষ্ট করার মতো যথেষ্ট উপাদান রয়েছে এ সিরিজে। টিজারে বেশ কয়েকটি রূপে দেখা গিয়েছে আইরিনকে।

টিজারে থাকা সাহসী দৃশ্য প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘স্বামী এবং স্ত্রীর সর্ম্পক বুঝানোর জন্যই এখানে বোল্ড বা ইন্টিমেট সিন রাখা হয়েছে। গল্পের সঙ্গে মিল রেখেই এ দৃশ্যটি করা। দর্শক পুরো সিরিজটি দেখলে অবশ্যই বুঝতে পারবেন। আর গল্পে ফাইট যেটা ছিলো সেটা নিয়ে এখনই কিছু বলতে চাই না। এটা চমক থাকুক। এই ফাইটিংয়ের পিছনে একটা কারণ আছে। সেটা হলো— দেশ আর নারী কখনো পণ্য হতে পারে না।’

এখনকার বাজারে ওয়েব সিরিজ নামে নাটক দেখানো হয়। ‘ট্র্যাপড’ সেই কথিত ওয়েব সিরিজ থেকে কতটুকু আলাদা? উত্তরে এ অভিনেত্রী বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করেছি সত্যিকার অর্থে একটা ওয়েব সিরিজ নির্মাণ করার।

এ জন্য পরিচালক থেকে শুরু করে পুরো টিম অনেক পরিশ্রম করেছেন। দর্শকদের সত্যিকারের একটি ওয়েব সিরিজ দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েই কাজটা শুরু হয়েছি।

দেশ এবং দেশের বাইরের বাংলা ভাষার দর্শকের জন্য একটা আর্ন্তজাতিক মানের কাজ উপহার দেয়াই ছিল আমাদের মূল টার্গেট।

আমার বিশ্বাস, ট্র্যাপড পুরোটা দেখার পর দর্শক অবশ্যই বলবেন— দিস এজ কলড ওয়েব সিরিজ। অলরেডি যারা টিজার দেখেছেন তারা হয়তো কিছুটা আন্দাজ করতে পেরেছেন।’

অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘সিনেস্পট’ অ্যাপে মুক্তি পাবে ওয়েব সিরিজটি। নির্মাতা সৈকত নাসির জানান, ঈদের আগের রাত থেকে ১২ পর্বে মুক্তি দেয়া হবে ওয়েব সিরিজটি। প্রতি পর্বের ব্যক্তিকাল ১৫ মিনিট। ওয়েব সিরিজটি প্রযোজনা করছে ইনোভেট সলিউশন লিমিটেড।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত