শিরোনাম

‘প্রথম স্বামী ছেড়ে বিয়ে করার পর জসিম ‍উধাও’

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি  |  ১৭:৩৮, জুন ১৯, ২০১৯

স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে টাঙ্গাইলের সখীপুরে দুইদিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছেন এক তরুণী। গেল সোমবার দুপুরে ওই তরুণী ওই বাড়িতে উঠে। ওই তরুণী বাড়িতে ওঠার পর প্রেমিক, প্রেমিকের মা'সহ ভাইবোন সবাই বাড়িতে তালা দিয়ে পালিয়ে গেছেন।

প্রেমিক জসিম উদ্দিন উপজেলার পাথারপুর গ্রামে প্রবাসী আলম মিয়ার ছেলে। এর আগে গত সোমবার প্রেমিক জসিম উদ্দিন ওই তরুণীর হাত থেকে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সখীপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

থানার জিডি ও তরুণীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জসীম উদ্দিন দুই বছর আগে চাকরি নিয়ে মালদ্বীপ যায়। ওই দেশ থেকে রাজধানী ঢাকার এক তরুণীর সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর সঙ্গে পরিচয় হয়। এরপর থেকে দুইজনের সঙ্গে গভীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।

গত ২৫ মে জসীম উদ্দিন দেশে ফিরেই ওই তরুণীর ঢাকার ভাড়া বাসায় উঠে। ঈদের আগের দিন সখীপুরের বাড়িতে আসার পর জসীম আর ঢাকায় ফেরত না গিয়ে ওই তরুণীর সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।

গত সোমবার জসীম সখীপুর থানায় জিডি করার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ওই তরুণী জসীমের বাড়িতে উঠে।

তরুণী (মৌসুমা নিশি) বলেন, জসিম আগে একটি বিয়ে করে বউকে তালাক দিয়েছে। অন্যদিকে আমি আমার প্রথম স্বামীর ঘর ছেড়ে জসিমের কাছে এসেছি।এ বিষয়টি আমাদের দুইজনেরই জানা (আন্ডারস্ট্যান্ডিং) আছে।

মালদ্বীপ থেকে সে আমাকে ঢাকায় একটি বাসা ভাড়া নিতে বলে। দেশে এসেই সে আমার ভাড়া বাসায় গিয়ে উঠে। ঈদের পর গ্রামের বাড়িতে গিয়ে ধুমধাম করে কাবিন ও বিয়ে হবে বলে আমাকে জানায়। এর মধ্যে আমরা কুরআন শরীফ ছুয়ে বিয়ে করেছি।

হঠাৎ ঈদর আগের দিন জসিম আমাকে কোনো কিছু না বলেই পালিয়ে আসে ও যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। আমি বাধ্য হয়েই আমার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য স্বামীর বাড়িতে উঠেছি।

গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, জসিম ও বাড়ির লোকজন পালিয়ে যাওয়ার কারণে এ ঘটনার মীমাংশা শিগগিরই হচ্ছে না। জসিমকে পেলেই এ বিষয়ে সমাধান করা হবে।

জসীম উদ্দিন জিডিতে উল্লেখ করেন, ওই তরুণী বিয়ের দাবিতে বাড়িতে উঠার মুঠোফোনে হুমকি দেয় ও পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এমএআই

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত