শিরোনাম

শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে : হাশেম রেজা

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি  |  ২৩:৩১, আগস্ট ১৫, ২০১৯

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক হাশেম রেজা বলেছেন, আগস্ট মাস বাঙালি জাতির কলঙ্কের মাস।

’৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে বাঙালির বীরত্বগাঁথা ইতিহাসে কালিমা লেপন করা হয়। অথচ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে বাংলাদেশ কোনো দিনই স্বাধীন হতো না।

সেই জনদরদী নেতাকে স্বাধীনতাবিরোধী কুচক্রীমহল সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় রচনা করেছিল।

আজ সেই শোককে শক্তিতে পরিণত করে ঐক্যবদ্ধভাবে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে প্রতিহত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করতে হবে এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (১৫আগস্ট) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার কুড়ুলগাছিতে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কেন্দ্রীয় যুবলীগের এই নেতা বলেন, সদ্য স্বাধীন দেশকে এগিয়ে নিতে বঙ্গবন্ধু নানামুখী কর্মসূচি গ্রহণ করেছিলেন।

কিন্তু স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি স্বাধীন দেশে পাকিস্তানি এজেন্ট হিসেবে কাজ করতে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলো। বাংলাদেশকে ঠেলে দিয়েছিলো অন্ধকারের দিকে। সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিলো তারা।

কিন্তু সেই সব অপশক্তিকে প্রতিহত করে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই অন্ধকার থেকে দেশকে আজ আলোর পথে নিয়ে এসেছেন।

আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবতায় রূপ নিচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতা আমাদের সবাইকে ধরে রাখতে দলমত নির্বিশেষে বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনার পাশে দাঁড়াতে হবে।

হাশেম রেজা বলেন, আগস্ট বাংলার মানুষের ব্যথা-বেদনার, ঘৃণার মাস। এই মাস এলেই স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তিগুলো আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের ওপর সক্রিয় হয়ে ওঠে।

এসব অপশক্তিকে প্রতিহত করতে কেন্দ্রের পাশাপাশি তৃণমূল নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনা পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়নি। পাকিস্তানের দোসর স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি এখনো বাংলাদেশের মাটিতে সক্রিয়।

বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানাতে তারা এখনো অপতৎপরতা চালাচ্ছে। আগামী প্রজন্মকে এ ব্যাপারে সচেতন এবং স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির আতঙ্ক হিসেবে গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

যুবলীগের কেন্দ্রীয় এই নেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা আছে। কিন্তু দলকে সঠিকভাবে পরিচালনা করার জন্য সঠিক নেতৃত্ব নেই।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার জন্য তারা কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন না। তারা শুধু বঙ্গবন্ধুর নাম ভাঙিয়ে আর ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে লুটপাট করছে।

কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে আলোচনা ছাড়াই প্রকৃত ও ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে হাইব্রিড নেতাদের নিয়ে কমিটি গঠন করা হচ্ছে। যা তাদের পকেট কমিটি।

দায়িত্বশীল নেতাদের এসব কর্মকাণ্ডের কারণে এ আসনে আওয়ামী লীগের রাজনীতি ধ্বংস হতে চলেছে। তাই এ আসনের সকল নেতাকর্মীকে সাবধান হতে হবে। পকেট কমিটির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

আলোচনা সভায় হাউলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন— আ.লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল হক, মোহাম্মদ আলী, আইনুদ্দিন মেম্বার, হারুন মোল্লা, যুবলীগ নেতা শাহাবুদ্দিন, বগা, জাহিদুল, ডা. তারিক, তরিকুল ইসলাম, রিপন, আ. মজিদ, লাটিম, ইব্রাহিম, জহিরুল প্রমুখ।

আলোচনা সভা ও র‌্যালি শেষে বঙ্গবন্ধুর শহীদ পরিবারের সবার রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন কুড়ুলগাছি আনন্দবাজার জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা আ. সালাম।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত