শিরোনাম

সড়ক দখল করে ওয়েলফুডের পার্কিংয়ে জনদুর্ভোগ

এএইচএম কাউছার, চট্টগ্রাম  |  ২২:৪৩, জুন ১৯, ২০১৯

নগরের প্রাণকেন্দ্র জিইসি মোড়ে সিগনাল আর জ্যামের ভোগান্তি নতুন কিছু নয়। মোড়ের বেশির ভাগ অফিস, মার্কেট ও রেস্তোরাঁর নেই নিজস্ব পার্কিং ব্যবস্থা। যেখানে পথচারীদের হাঁটার একমাত্র অবলম্বন ফুটপাত। ঠিক সেখানেই ফুটপাত আর সড়ক দখল করে ওয়েলফুড বানিয়েছে নিজেদের পার্কিং।

সরেজমিন দেখা যায়, জিইসি মোড়ের ওয়েলফুডের প্রধান শাখার সামনে ফুটপাত দখল করে বানানো হয়েছে পার্কিং। ফুটপাত দখল করে বানানো এই পার্কিংয়ে তিন থেকে চারটি গাড়ি পার্ক করার ব্যবস্থা থাকলেও গাড়ির তুলনায় এ অবৈধ পার্কিংও অপর্যাপ্ত। তাই বেশির ভাগ সময় মূল সড়কে পার্ক করা থাকে প্রাইভেট গাড়ি। আর এতে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট।

ওয়েলফুডের শোরুমের পরেই ফুটপাত দখল করে ফলের দোকান বসানো নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দোকানদার বলেন, আমরা গরিব মানুষ পেটের দায়ে বসছি এখানে। আপনারা কিছু লেখলে তারা আমাদের তুলে দিবেন।

কিন্ত ওয়েলফুড যে ফুটপাত দখল করেছে আপনারা তা লেখেন না, বলেনও না। সব দোষ গরিবের। আগে তাদের নামে লেখেন, তারপর আমরা ওঠে যাবো। পথচারী তানজিনা বলেন, মেডিকেলের সব রোগীদের এই সড়ক দিয়েই আসা-যাওয়া করতে হয়।

কিন্ত সড়কের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ফুটপাত খুঁজে পাওয়া যায় না। ওয়েলফুডের কথা আর কিই বা বলব! আপনি নিজেই দেখতে পাচ্ছেন। ফুটপাত নেই, তাই মূল সড়কে নেমে ঝুঁকি নিয়ে আমাদের হাঁটতে হয়।

একে তো ছোট সড়ক, তার উপর হাঁটার ফুটপাত দখল করে চলছে নৈরাজ্য। কেউ কিছু বললেও লাভ হয় না। উল্টো বিপদে পড়তে হয়। পুলিশ কি দেখে না এসব? ফৌজদার হাটের বাসিন্দা আরিফ মাহমুদ চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে মাকে ভর্তি করিয়েছেন।

তিনি বলেন, আজ ৫ দিন আমার মা মেডিকেলে। প্রতিদিন অন্তত একবার হলেও এ পথ দিয়ে আমি মেডিকেলে আসি। কিন্ত বাস থেকে জিইসি নেমে মেট্রোপলিটন পর্যন্ত আসা যে এত বিরক্তিকর তা বলে বুঝাতে পারবো না। সড়কে হাঁটার জায়গা পর্যন্ত নেই।

কি এক অরাজকতা চলছে এই দেশে! ফুটপাত নেই, হাঁটতে হয় রাস্তায় নেমে। গাড়ি চলবে কই, আর মানুষইবা হাঁটবে কই! পার্কিং নেই- তা স্বীকার করে ওয়েলফুডের জিইসি শাখার এইচআর মো. আলাউদ্দিন বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

কিভাবে অনুমতি নেয়া হয়েছে তা আমাদের প্রতিষ্ঠানের স্যাররা জানেন। আমি নাম্বার দিচ্ছি, আপনি আমাদের চিফ কর্ডিনেটরকে ফোন করেন। তিনি এ বিষয়ে বিস্তারিত বলতে পারবেন।

বিস্তারিত জানার জন্য চিফ কর্ডিনেটর মনির আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পার্কিং নেই কেন, তা আমি কিভাবে জানবো? মালিকপক্ষ বলতে পারবেন এ বিষয়ে। আপনি ওনাদের সঙ্গে কথা বলুন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ওয়েলফুডের চেয়ারম্যান ও চউকের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বলেন, বিল্ডিংটি অনেক আগের তৈরি, তাই পার্কিং নেই। তবে আমরা নালার উপর স্ল্যাপ দেয়া অংশ ভাড়া নিয়েছি।

এভাবে কোনো প্রতিষ্ঠানের পার্কিং তৈরি করা যায় কি না এমন প্রশ্নে তিনি কোনো উত্তর দেননি। এ বিষয়ে উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) হারুন অর রশিদ হাজারি বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। এ বিষয়ে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত