শিরোনাম

জামাত-উদ-দাওয়া প্রধান হাফিজ সাইদ কারাগারে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক   |  ১০:২৪, জুলাই ১৭, ২০১৯

মুম্বাই হামলার মাস্টারমাইন্ড জামাত-উদ-দাওয়া প্রধান হাফিজ সাইদকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাকে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে রাখা হয়েছে। লাহোর থেকে গুজরানওয়ালা যাওয়ার পথে হাফিজকে পাকিস্তানের সন্ত্রাস দমন শাখা গ্রেপ্তার করে বলে দাবি করেছে পাক সংবাদমাধ্যম।

হাফিজের গ্রেপ্তারের খবর নিশ্চিত করেছে জামাত-উদ-দাওয়ায়ের এক মুখপাত্র।

ভারতের ওই কুখ্যাত জঙ্গি হানার পরেও হাফিজ সাইদকে দেখা গেছে পাকিস্তানে খোলাখুলি ভাবে ঘুরে বেড়াতে। চলতি মাসের শুরুতে আন্তর্জাতিক চাপের কাছে নতিস্বীকার করতে বাধ্য হয়ে পাকিস্তান হাফিজ সাইদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ দায়ের করে।

পাকিস্তানের পাঞ্জাব পুলিশের সন্ত্রাস বিরোধী বিভাগের প্রথম রিপোর্টে সন্ত্রাসে অর্থ যোগানো ও আর্থিক তছরুপ সহ একাধিক অপরাধের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই এক মামলায় হাফিজ সাইদসহ ৪ জনের জামিন মঞ্জুর করেছিল লাহোরের সন্ত্রাস দমন আদালত। জুলাই মাসে জামাত-উদ-দাওয়াই, লস্কর-এ-তইবা ও এফআইএফের বিরুদ্ধে ২৩টি মামলা দায়ের করেছিল সন্ত্রাস দমন শাখা।

গেপ্তারের প্রসঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার বলেন, ‘‘জঙ্গি সংগঠনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক দুনিয়াকে কৌশলী বার্তা দিতে চাইছে। তবে পাকিস্তানের এমন লোকদেখানো পদক্ষেপে আমাদের বোকা বনে যাওয়া উচিত হবে না।’’

২০১৭ সালে হাফিজ ও তার ৪ সহযোগীকে সন্ত্রাস আইনের অধীনে পাকিস্তান সরকার আটক করে। কিন্তু পাঞ্জাবের জুডিশিয়াল রিভিউ বোর্ড তাদের বন্দিদশা বাড়ানোর আবেদন প্রত্যাখ্যান করে ১১ মাস পরেই মুক্তি দেয় তাদের।

গত বছর, ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স- একটি প্যারিস ভিত্তিক বিশ্বব্যাপী সংস্থা যারা সন্ত্রাসবাদে মদত যোগানো বন্ধে কাজ করছে, তারা পাকিস্তানকে এমন একটি তালিকাতে রাখে যে দেশটির আইন আর্থিক তছরুপ এবং সন্ত্রাসে মদত যোগাতে অর্থ যোগান বন্ধের মতো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার ক্ষেত্রে খুবই দুর্বল। গত অক্টোবরে, এটি সন্ত্রাস তহবিল যোগান বা সন্ত্রাসবাদে মদতের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা করার জন্যে পাকিস্তানকে অনুরোধ করে।

নভেম্বরে মুম্বই হামলার দশম বার্ষিকী উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র চাপ বাড়ায় পাকিস্তানের ওপর। পাকিস্তানকে এই হামলার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে এবং হাফিজ ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তারে সাহায্য করার জন্যে ৫০ লাখ মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করে দেশটি।

“মুম্বই হামলায় নিহতদের পরিবারের কাছে এটি অত্যন্ত অপ্রীতিকর ঘটনা যে হামলার দশ বছর পার হয়ে যাওয়ার পরেও যারা ওই হামলার সঙ্গে জড়িতদের এখনো দোষী সাব্যস্ত করা হয়নি”, বিবৃতি দেন মার্কিন পররাষ্ট্রসচিব মাইক পম্পিও।

সূত্র : এনডিটিভি

এমএআই

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত