শিরোনাম

কিশোরীকে ধর্ষণ, নগ্ন অবস্থায় দৌড়াল আধা কিলো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক  |  ১৩:১২, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

প্রথমে অপহরণ। তারপর ধর্ষণ। শেষমেশ মারধর। নারকীয় কাণ্ড ঘটল ভারতের মধ্য রাজস্থানে।

গত সোমবার দুই বন্ধুর সঙ্গে মন্দিরে গিয়েছিল ১৫ বছরের এক কিশোরী। ঘটনাটি ঘটে রাজস্থানের জয়পুর থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে ভিলওয়ারা জেলায়।

পুলিশ জানিয়েছে, তিন বখাটে রাস্তায় মদ্যপান করছিল। দুই পুরুষ বন্ধুর সঙ্গে ওই কিশোরীকে আসতে দেখে তারা পিছু নেয়। কিছুক্ষণ পর কিশোরীর দুই পুরুষ বন্ধুকে মারতে শুরু করে তারা। কোনওমতে দুই বন্ধু সেখান থেকে পালাতে সক্ষম হয়।

এরপর কিশোরীটিকে তিন বখাটে অপহরণ করে নিয়ে যায় একটি নির্জন স্থানে। সেখানে মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয়।

কিশোরীর এক পুরুষ বন্ধু পুরো ঘটনা জানায় স্থানীয় দোকানদার চাঁদ খান রঙ্গরেজকে। তিনিই বাইক নিয়ে এসে কিশোরীকে রক্ষা করেন।

চাঁদ খান বলেছেন, আমি দোকানে বসেছিলাম। ঘটনা জানতে পেরে আমি বাইক নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই। দেখি ওই তিনজন কিশোরীকে মারধর করছে। আমাকে দেখেই তিনজন পালায়।

‘মেয়েটি এতটাই ভয় পেয়ে গিয়েছিল। যে আমার কথা শোনেনি। সে নগ্ন অবস্থায় পালাচ্ছিল। আমাকে বিশ্বাস করতে চায়নি। ওই অবস্থায় প্রায় আধ কিলোমিটার দৌঁড়ায় মেয়েটি। কিছুক্ষণ পর আমার কথা বিশ্বাস হওয়াতে মেয়েটি দাঁড়ায়। আমি সঙ্গে থাকা কাপড় মেয়েটিকে দিই। তারপর মেয়েটিকে বাড়ি পৌঁছে দিই। প্রথমে ভেবেছিলাম হাসপাতালে নিয়ে যাব। কিন্তু কিশোরী হাসপাতালে যেতে রাজি হয়নি।’‌

পুরো ঘটনা শোনার পর মেয়েটির মা–বাবা পুলিশে অভিযোগ জানায়। কিশোরী, তাঁর বন্ধু, চাঁদ খানের বয়ান রেকর্ড করে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে মদের বোতল, রক্তের দাগ, ভাঁঙা কাঁচের চুড়ি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) গ্রেপ্তার করা হয়েছে অভিযুক্ত তিনজনকে। যাদের মধ্যে রাজু কাহার ও কৈলাশ কাহারের বয়স ২০ থেকে ৩০ এর মধ্যে। আর নারায়ণ গুর্জরের বয়স চল্লিশের ঘরে।

মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে। যাতে ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে। প্রাণে বাঁচলেও প্রায় আধমরা হয়ে গেছে কিশোরীটি।

আরআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত