শিরোনাম

চাপা ক্ষোভে ফুঁসছে কাশ্মীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক   |  ১২:৩৩, অক্টোবর ১৩, ২০১৯

ভারত সরকার কাশ্মীরকে স্বাভাবিক বলে দাবি করলেও, কাশ্মীরে বিরাজ করছে অন্য অবস্থা। ভিতরে চাঁপা ক্ষোভ আর উত্তেজনা নিয়ে অহিংস প্রতিবাদী হয়ে ওঠেছে কাশ্মীরের জনগণ। কাশ্মীর ঘুরে এসে সুশীল সমাজের একটি দল জানান, সরকারি ভাষ্য আর বাস্তব চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন কিছু।

এরমধ্যেই, শ্রীনগরে গ্রেনেড হামলায় এক নারীসহ আট জন আহত হয়েছে। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের দু'মাস পর পর্যটকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা, মোবাইল ও ইন্টারনেটের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে সরকার। আপাতত সরকারের এ সিদ্ধান্তে কিছুটা শিথীল পরিস্থিতি বিরাজ করলেও ভিতরে ফুঁসছে সাধারণ মানুষ।

কাশ্মীর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে না হতেই শনিবার শ্রীনগরের হরি সিং হাই সড়কে একটি মার্কেটে শক্তিশালী গ্রেনেড বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসীদের ছোঁড়া গ্রেনেডে বেশ কয়েকজন আহত হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

কাশ্মীর পরিস্থিতি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক রয়েছে বলে সরকার দাবি করলেও, শনিবার চার সমাজকর্মীর একটি দল জম্মু কাশ্মীর ঘুরে এসে জানান, সরকারি বয়ানের চেয়ে বাস্তবের কাশ্মীর পরিস্থিতি একদম আলাদা। প্রকৃতপক্ষে উপত্যকাটি নীরব প্রতিবাদে ফুঁসছে।

মনোবিদ অনিরুদ্ধ কালা, জনস্বাস্থ্যকর্মী ব্রিনেল ডিসুজা, সাংবাদিক রেবতী লাউল এবং সমাজকর্মী শবনম হাসমি কাশ্মীরের রাজনীতিক, আমলা, গৃহবধূ, স্কুলশিক্ষক, ব্যবসায়ী, ট্যাক্সিচালক, শিক্ষার্থী, সাংবাদিক, সমাজকর্মীসহ সমাজের সব স্তরের মানুষের সঙ্গে কথা বলেন।

বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর হিংসার প্রকোপ দেখা না যাওয়াকে কাশ্মীরিদের দাঁতে দাঁত চেপে সহ্য করে যাওয়া বলে জানান তারা। বলেন, কাশ্মীরিরা নিজ থেকেই দোকানপাট, অফিস বন্ধ রেখেছেন।

কাশ্মীরিদের মুখ বন্ধ করে রাখার পাশাপাশি তারা ভাল আছে বলে গণমাধ্যমকে বলতে বাধ্য করানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তারা।

এদিকে, পাকিস্তানে জম্মু কাশ্মীরিদের প্রতি সংহতি জানিয়ে ৩১শে অক্টোবর রাজধানী ইসলামাবাদ অভিমুখে জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলাম ফজল দলের আজাদি পদযাত্রা ঠেকাতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে পুলিশ।

দাঙ্গা রুখতে বিভিন্ন সরঞ্জামের পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হবে বলেও জানানো হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত