শিরোনাম

দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ রোল মডেল: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   |  ০৯:৫১, অক্টোবর ১৩, ২০১৯

দুর্যোগ ব্যবস্থায় আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশের খ্যাতি আছে। বিশ্ববাসী বাংলাদেশের প্রশংসা করে বলে বললেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বাংলাদেশ শুধু উন্নয়নেরই রোল মডেল না, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায়ও বিশ্ব দরবারে রোল মডেলের সম্মান পেয়েছে বাংলাদেশ।

রোববার (১৩ অক্টোবর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বন্যা, খরা, ঘূর্ণিঝড়, অগ্নিনির্বাপনসহ বিভিন্ন ধরনের দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি যাতে হ্রাস পায় এজন্য যা যা ব্যবস্থা নেওয়ার ইতোমধ্যে আমরা তা নিয়েছি।

যা আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত হয়েছে এবং (বিশ্ব) মনে করে এক্ষেত্রে বাংলাদেশের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। অনেকে আমাদের কাছ থেকে জানতে চায়।

তিনি বলেন, এবছর জুলাই মাসে ঢাকায় গ্লোবাল কমিশন অন অ্যাডাপটেশনের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন দুর্যোগ প্রতিরোধে সাফল্যের স্বীকৃতি হিসেবে বিশ্ব অভিযোজন কেন্দ্র- ঢাকা অফিস স্থাপনের ঘোষণা দেন।

বিশ্বে এখন আমরা শুধু উন্নয়নের রোল মডেল না প্রাকৃতিক দুর্যো মোকাবিলায়ও বিশ্বে বাংলাদেশ রোল মডেল, সে সম্মান পেয়েছে।

যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সব সময় প্রস্তুত থাকবে আশা প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেকোনো মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ আসুক আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসুক সব ধরনের দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য বাংলাদেশ সব সময় প্রস্তুত থাকবে। সেটাই আমি চাই। আমাদের স্বেচ্ছাসেবকরাও নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করবে সেটাই আমি আশা পোষণ করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে প্রায় ৫৬ হাজার প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে আমাদের। তাছাড়া ৩২ হাজার নগর স্বেচ্ছাসেবক, ২৪ লাখ আনসার ভিডিপি, ১৭ লাখ আমাদের স্কাউট, ৪ লাখ বিএনসিসি, গার্লস গাইডের প্রায় ৪ লাখ সদস্য তারাও এক্ষেত্রে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। যেকোনো দুর্যোগের সময় তারা সবাই সেখানে উপস্থিত হয় এবং কাজ করে।

তিনি বলেন, আমাদের সরকার ইতোমধ্যে ৩৭৮টি মুজিব কেল্লা নির্মাণ করেছে। আর উপকূলে ৩ হাজার ৮৬৮টি বহুমুখী সাইক্লোন শেল্টার আমরা নির্মাণ করেছি। আমরা আরও ১ হাজার ৬৫০টি সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করবার পদক্ষেপ নিয়েছি।

ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নদীর নাব্যতা রক্ষা, ভাঙনপ্রবণ এলাকাগুলোতে নদী শাসনের ব্যবস্থা, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ১শ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখে ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়ি-ঘর তৈরি করে দেওয়ার পদক্ষেপ, দুর্যোগপ্রবণ এলাকাগুলোতে মানুষকে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ করে দেওয়ার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে চর, পাবর্ত্য অঞ্চল, দ্বীপসহ দুর্গম অঞ্চলে যাতে আবহাওয়া বার্তা পৌঁছানো যায় সরকার তার জন্য পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

এসএ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত