বুধবার ০৮ এপ্রিল ২০২০

২৫ চৈত্র ১৪২৬

ই-পেপার

ওয়ালিউর রহমান রতন, সৈয়দপুর (নীলফামারী)

জানুয়ারি ১৪,২০২০, ০৭:৫৭

ফেব্রুয়ারি ০৯,২০২০, ১০:০৯

প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গাছ কাটার অভিযোগ

মুজিববর্ষ উপলক্ষে সরকার দেশব্যাপী বৃক্ষ রোপণের নানা উদ্যোগ গ্রহণের মধ্যে সৈয়দপুরে সরকারি দপ্তরে মূল্যবান বৃক্ষ সাবাড় করা হয়েছে। এটি ঘটেছে সৈয়দপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরে। এ দপ্তরের প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনুমতি ছাড়া অর্ধশত বয়সি জীবন্ত ২৫টি ফলদ ও বনজ বৃক্ষ গাছ কেটে বিক্রি করার অভিযোগ মিলেছে। এসব গাছের বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ১০ লাখ টাকা বলে জানা গেছে। গত ১০ জানুয়ারি মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা শুরু হয়। এদিন থেকেই সৈয়দপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাশেদুল হক অত্যন্ত গোপনে অফিস চত্বরের ফলদ ও বনজ গাছ কেটে বিক্রি করা শুরু করেন। সোমবার বিকাল ৫টায় শেষ হয় গাছ কাটা। সরেজমিন গেলে বেশ কিছু গাছের গুঁড়ি ও কাটা গাছের গোড়া নজরে আসে দপ্তর চত্বরে। এ বিষয়ে জানতে কথা হয় সৈয়দপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাশেদুল হকের সঙ্গে। তিনি জানান, গাছ নয়, গাছের ডাল কাটা হয়েছে। এ সময় কাটাগাছের গুঁড়ি মাটিতে রয়েছে এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ভুলে ওই মূল্যবান মেহগনির গাছটি কাটা হয়েছে। জীবন্ত গাছ কাটতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন লিখিতভাবে অনুমতি নেয়া হয়নি। তবে মৌখিকভাবে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. মোনাক্কা আলী মুঠোফোনে বলেন, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে গাছের ডাল কাটার অনুমতি দেয়া হয়েছে গাছ কাটতে নয়। মুজিববর্ষে গাছ কাটা নিয়ে কথা হয় সৈয়দপুর সামাজিক বনায়ন নার্সারি ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. নাজমুল হাসান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা মতে মুজিববর্ষে সৈয়দপুর উপজেলায় ১ কোটি বৃক্ষ রোপণের প্রস্তুতি চলছে, সেখানে জীবন্ত গাছ কাটা একবারেই অন্যায় কাজ হয়েছে। তবে এ নিয়ে তার দপ্তরে কোনো চিঠি দেয়া হয়নি। মুজিববর্ষে অবৈধভাবে গাছ কেটে বিক্রি করা প্রসঙ্গে জানতে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে কল রিসিভ না করায় তার মন্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। পরে সৈয়দপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল চন্দ্র সরকারের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, বেআইনি কিছু হলে এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমারসংবাদ/এমআর