মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

ই-পেপার

সাদুল্লাপুর (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

জানুয়ারি ২০,২০২০, ১২:১৯

ফেব্রুয়ারি ০৯,২০২০, ১০:০৯

সাংবাদিককে প্রকৌশলীর প্রাণনাশের হুমকি

‘দৈনিক আমার সংবাদ’ পত্রিকার রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি গণমাধ্যমকর্মী আবদুল করিম সরকারকে মামলায় ফাঁসানোসহ প্রাণ নাশের হুমকির অভিযোগ উঠেছে। নিজের অপকর্ম ঢাকতে পীরগঞ্জের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আবু সাইদ আকন্দ এমন হুমকি প্রদান করছে বলে অভিযোগ এ গণমাধ্যমকর্মীর। উপ-সহকারী প্রকৌশলীর মামলা হামলার আতঙ্কে আতংকিত, ভীতস্ব ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তার পরিবার। মিথ্যা চাদাঁ বাজির মামলায় জামিনে মুক্ত হওয়ার পর আব্দুল করিম সরকারকে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরের ধাপেরহাটের প্রেসক্লাবে তার সতীর্থরা ফুলের শুভেচ্ছা জানান। এসময় আব্দুল করিম সরকার তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার বিষয়ে সতীর্থদের জানায়, আমি এলাকায় প্রায় একযুগ ধরে একজন গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে অত্যন্ত ন্যায় এবং নিষ্ঠার সাথে পেশাগত দায়িত্ব পালন করে আসছি। আমি দেশ-জাতির স্বার্থে সর্বদা সংবাদ পরিবেশন করে থাকি। গত ২৪ ডিসেম্বর/ তারিখে আমি আমার পেশাগত দায়িত্ব পালনে পীরগঞ্জের পানবাজার ডিএম উচ্চ বিদ্যালয়ে যাই। এসময় চারতলা ভবন নির্মাণ কাজে অনিয়ম দেখে ২৫ তারিখে পত্রিকায় পানবাজার ডি এম উচ্চ বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণের অনিয়ম তুলে ধরে নিউজ করি। তা ২৬ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে প্রকাশিত ‘দৈনিক আমার সংবাদ’ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। সংবাদ প্রকাশের পর ঐ দিন শিক্ষা প্রকৌশলী অধিদপ্তর রংপুর পীরগঞ্জের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আবু সাইদ আকন্দ পত্রিকায় তার বিরুদ্ধে অনিয়মের খবর দেখে। পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের সূত্র ধরে তার ব্যবহৃত মোবাইল নং ০১৭১২৯৩-৯৮ নম্বর থেকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও প্রাণ নাশের হুমকি প্রদান করে। এ সময় বিষয়টি আমি তাৎক্ষণিকভাবে বজ্রকথার সম্পাদক সুলতান আহমেদ সোনা, জাগো-২৪ ডট কমের সম্পাদক আখতারুজ্জামান রানা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, পীরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মকসেদ আলী সরকারকে অবগত করি এবং ঐদিন ২৬ ডিসেম্বর প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করি। ২৬ ডিসেম্বর পীরগঞ্জ থানা পুলিশ আমার মামলা রেকর্ড না করে পরের দিন ২৭শে ডিসেম্বর সংবাদ প্রকাশের জেরে আমার বিরুদ্ধে প্রকৌশলী মিথ্যা ভিত্তিহীন ২০ হাজার টাকার চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করে। সেদিন ২৭ ডিসেম্বর পীরগঞ্জ থানা পুলিশ কোন তদন্ত ছাড়াই মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলার আসামি হিসেবে মামলা রেকর্ডের ৬ঘন্টার মধ্যে আমাকে রাতে রাড়ি থেকে আটক করে। ২৮ ডিসেম্বর আমাকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়। আমি অবাক হয়ে যাই এটা ভেবে যেখানে একজন সাধারণ জনগনকে আটকের পূর্বে পুলিশ তদন্ত করে। আর সেখানে একজন গণমাধ্যমকর্মীকে আটকের পূর্বে তদন্ত তো দূরের কথা আটক করে মামলা রেকর্ড করে। আমি ১৬ দিন জেলখানায় থাকার পর গত ১২ জানুয়ারি জামিনে মুক্ত হই। জামিনে মুক্ত হওয়ার পূর্ব থেকেই প্রকৌশলী আবু সাইদ আমার পরিবারকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান অব্যহত রেখেছিলো। আমি জামিনে মুক্ত হওয়ার পর আমার পরিবার ও আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো চেষ্টাসহ খুন করার হুমকি প্রদান করছে। তাই আমি ও আমার পরিবার এখন নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি। এসকল বিষয়ে আমি লিখিতভাবে অভিযোগ আকারে নিরুপায় হয়ে সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য, জাতীয় সংসদের স্পিকার ও পীরগঞ্জ ৬ আসনের এমপি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঢাকা, স্বরাষ্ট্র সচিব ঢাকা, বাংলাদেশ মহা পুলিশ পরিদর্শক ঢাকা, জেলা প্রশাসক রংপুর, পুলিশ সুপার রংপুর, বিভাগীয় পুলিশ কার্যালয় রংপুর, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর রংপুর মানবাধিকার কমিশন রংপুর, দুর্নীতি দমন কমিশন রংপুর, ও প্রেসক্লাব রংপুরে জানিয়েছি। তার কথাগুলো আমলে নিয়ে তার সতীর্থ কলম সৈনিকরা (সাংবাদিকরা) তার বিরুদ্ধে প্রকৌশলীর মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা প্রত্যাহারের দাবিসহ তার সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনার জন্য তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ,ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় গণমাধ্যমকর্মী (সাংবাদিক) ও তার পরিবারকে হুমকির বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে, তদন্ত পূর্ব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণে যথাযথ কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন। আমারসংবাদ/কেএস