সোমবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

১১ ফাল্গুন ১৪২৬

ই-পেপার

প্রিন্ট সংস্করণ॥ইসলাম রকিব, চুয়াডাঙ্গা

জানুয়ারি ২৩,২০২০, ০১:৩৫

ফেব্রুয়ারি ০৯,২০২০, ১০:০৯

চুয়াডাঙ্গায় বাণিজ্যিকভাবে ক্যাপসিকাম চাষ শুরু

চুয়াডাঙ্গায় বাণিজ্যিকভাবে সবজি জাতীয় ক্যাপসিকাম চাষ শুরু হয়েছে। আবহাওয়া ক্যাপসিকাম চাষের উপযোগী হওয়ায় ফলন ভালো হয়েছে। এ সবজির চাহিদা রয়েছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। ক্যাপসিকাম বিভিন্ন ধরনের খাবারের সাথে খাওয়া যায়। চুয়াডাঙ্গায় চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলার ফাস্ট ফুড, তারকা হোটেল, চাইনিজ খাবারের দোকানগুলোতে সরবরাহ করা হচ্ছে। বাজারে দাম তুলনামূলক ভালো। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার জেলা শহরের নিকটবর্তী গাড়াবাড়িয়া গ্রামে বাণিজ্যিকভাবে ক্যাপসিকাম চাষ শুরু হয়েছে। পরীক্ষামূলকভাবে ১২ বিঘা জমিতে ক্যাপসিকাম চাষ হচ্ছে। আবহাওয়া উপযোগী ও মাটি উর্বর হওয়ায় ক্যাপসিকাম চাষ ভালো হচ্ছে বলে জানান ওই ক্যাপসিকাম চাষি। ক্যাপসিকাম চাষের উপযুক্ত সময় হলো অক্টোবর থেকে নভেম্বর মাসের মধ্যে। ক্যাপসিকামের বীজ বপন করার ১ মাস পর চারা তৈরি হয়। চারা উপযুক্ত হওয়ার পর জমি তৈরি করতে হয়। চারা রোপণের আগে পলিথিন দিয়ে বেড তৈরি করতে হয়। জমিতে নির্দিষ্ট পরিমাণ জায়গা ফাঁকা রেখে গাছের চারা বপন করতে হয়। ১২ বিঘা জমিতে প্রায় ৬ হাজার গাছ রয়েছে। প্রতি বিঘা জমি থেকে ৩ টন ক্যাপসিকাম ফল পাওয়া যাবে। নিয়মিত পরিচর্যা করতে হয় গাছগুলোর। গাছ লাগানোর ৩৫-৪০ দিনের মধ্যে ফুল আসতে শুরু করে। ফুল আসার ২০ দিনের ভেতর ফল বিক্রির উপযুক্ত হয়। কয়েক মাস পর্যন্ত ফল পাওয়া যায় গাছ থেকে। প্রথমপর্যায়ে ফলের রং সবুজ হয়। পাকলে ক্যাপসিকামের রং হয় লাল। আর মাঠজুড়ে গাছে গাছে থোকায় থোকায় ঝুলছে ক্যাপসিকাম ফল। চুয়াডাঙ্গার বাজারের চাহিদা অল্প থাকায় ঢাকা ও চট্টগ্রামে বিক্রি করা হয়। ঢাকা ও চট্টগ্রামে এর চাহিদা রয়েছে অনেক বেশি। ব্যাপরীরা চুয়াডাঙ্গা থেকে ক্যাসপিকাম কিনে নিয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামে বিক্রি করেন।এ পর্যন্ত ১৫ মণের বেশি ক্যাপসিকাম বিক্রি করা হয়েছে। যার বাজার মূল্যে প্রতি কেজি ১০০-১২০ টাকা। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গাড়াবাড়িয়া গ্রামের এগ্রিকনসান ফার্মের ম্যানেজার খাইরুল ইসলাম বলেন, আমাদের ফার্মে তিন বছর ক্যাপসিকাম চাষ করছি। ২০১৮ সালে ১০ কাঠা জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে চাষ করা হয়। প্রথম বছর আশানুরূপ ফল পায়নি। ২০১৯ সালে ১ বিঘা জমিতে চাষ করলে যথেষ্ট ভালো হয়। ফল ভালো ধরে ছিল গাছে। অল্প পরিসরে বিক্রি করে ছিলাম। কিন্তু এ মৌসুমে শতভাগ সফলতা পেয়েছি ক্যাপসিকাম চাষে। কারণ আবহাওয়া অন্য বছরের তুলনায় ভালো। প্রতিটি গাছে রয়েছে ফল। প্রতিটি ফলের ওজন ভালো। বাজারে ক্যাপসিকামের চাহিদা থাকায় দাম ও ভালো। এগ্রিকনসান ফার্মের মালিক আব্দুল কাদের বলেন, আমি চাষে নতুনত্ব আনার চেষ্টা করি। সব ধরনের ফল ও ফসল উৎপাদনের চেষ্টা করি। ক্যাপসিকাম লাভজনক একটি চাষ। এ সবজি বাজারে পাওয়া যায় সে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আলী হাসান জানান, চুয়াডাঙ্গায় বাণিজ্যিকভাবে ক্যাপসিকাম চাষ শুরু হয়েছে। এটি লাভজনক ব্যবসা। চাহিদা রয়েছে বাজারে। জেলায় ক্যাপসিকাম চাষ ছড়িয়ে দিতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কাজ করছে। ক্যাপসিকামের মাঠ ঘুরে দেখেছি। গাছ ভালো হওয়ায় ফল ও ভালো হয়েছে। সবজি হিসেবে খাওয়া যায় যে কোনো খাবারের সাথে। ক্যাপসিক্যামে মরিচের মতো গন্ধ থাকলেও খাওয়ার সময় ঝাল ধরে না। আমারসংবাদ/এসটিএমএ