শনিবার ৩০ মে ২০২০

১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

বিনোদন প্রতিবেদক

মে ১৯,২০২০, ০৪:৩৭

মে ১৯,২০২০, ০৪:৩৭

অপূর্বের হুঁশিয়ারি, তিশার মামলার হুংকার!

ছোট পর্দার জনপ্রিয় তারকা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও অভিনেত্রী তানজিন তিশা একসঙ্গে হুংকার ছেড়েছেন। গত রোববার অপূর্ব ও নাজিয়া হাসান অদিতির (স্ত্রী) ৯ বছরের সংসার ভেঙে গেছে। বিষয়টি রোববার প্রকাশ্যে আনেন অদিতি নিজেই।

তবে কি নিয়ে তাদের বনিবনা হচ্ছিল না, তা এখনো জানা যায়নি।

এর মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়িয়েছে, অভিনেত্রী তানজিন তিশার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ায় অপূর্বর ঘর ছেড়েছেন অদিতি।

তবে এটা কি আসল কারণ নাকি শুধুই গুজব। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন অপূর্ব।

সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে গসিপ করা এবং তির্যক, মিথ্যা, বানোয়াট মন্তব্য করে কারও কষ্ট বাড়িয়ে দেওয়ার মতো খারাপ কাজগুলো থেকে সবাই বিরত থাকবেন। এবং রসালো কোনও গল্প তৈরি করে সংবাদ করার চেষ্টা করবেন না, প্লিজ।’

তবে অপূর্ব কিছু গণমাধ্যমকে হুঁশিয়ার করেও স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ‘তৃতীয় কাউকে জড়িয়ে কোনও ধরনের ভুল সংবাদ প্রকাশ করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ব্যবস্থা নেবো।’

অপূর্ব অবশ্য স্ট্যাটাসে অদিতিকে নিয়েও লেখেন। তিনি অদিতিকে নিয়ে লিখেছেন, ‘আমি অদিতিকে সম্মান করি এবং আজীবন করবো। সুতরাং কোনোভাবেই অদিতিকে অসম্মান করে তার পাশে অন্য কারও নাম আমি সহ্য করবো না। ভুলে যাবেন না, অদিতি এখন আইনগত ভাবে আমার স্ত্রী না থাকলেও সে আমার সন্তানের মা।’

ফেসবুকে অপূর্ব এও জানান, তৃতীয় ব্যক্তিকে জড়িয়ে তাকে নিয়ে প্রকাশিত কিছু সংবাদের লিংক সংগ্রহ করেছেন তিনি।

অপরদিকে একই হুঙ্কার ছাড়লেন অভিনেত্রী তানজিন তিশাও। সোমবার ভোরে নিজের ফেরিফাইড ফেসবুক পেজে একটি পোস্ট দিয়েছেন তানজিন তিশা। তার পোস্টটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

আমি সাধারণত গুজবে সাড়া দিই না। তবে আজ আমি অনুভব করছি যে, কয়েকটি অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত চলমান গসিপ বন্ধ করা উচিত। দয়া করে আমার নামটি ব্যবহার করবেন না। এতে আমারসহ শিল্পী এবং তার পরিবারের চলমান পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে।

আমি সত্যিকার অর্থে বিশ্বাস করি যে, কেউ আমার খ্যাতি কুখ্যাতিতে পরিণত করতে ইচ্ছাকৃতভাবে এটি তৈরি করছে।

আমার ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে অনুরোধ, দয়া করে এমন খবরে বিশ্বাস করবেন না, যার কোনও সত্যতা নেই। আমি আপনাদের সবাইকে অনুরোধ করছি যেন এই গুজবে আর ভাগ না বসিয়ে এবং ছড়িয়ে না দেন। কারণ, ভুয়া খবর ছড়িয়ে দেয়াও একটি সাইবার অপরাধ।

পোস্টে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিশা বলেন, অনুরোধ করছি আপনাকে এই ধরনের ভিত্তিহীন গল্পে আমার নাম উল্লেখ না করার। যারা এই কাজটি চালিয়ে যাবেন তাদের বিরুদ্ধে আমি আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবো।

আমারসংবাদ/জেডআই