রবিবার ০৫ এপ্রিল ২০২০

২২ চৈত্র ১৪২৬

ই-পেপার

আসাদুজ্জামান আজম

প্রিন্ট সংস্করণ

ফেব্রুয়ারি ১২,২০২০, ০৫:৪০

ফেব্রুয়ারি ১২,২০২০, ০৫:৫১

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উন্নত বাংলাদেশের সারথি আমার সংবাদ

হাটি হাটি পা পা করে ৮ বছরে পদার্পন করলো দৈনিক আমার সংবাদ। প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে অবিচল যাত্রা অব্যাহত রেখেছে সংবাদপত্রটি। এগিয়ে চলা বাংলাদেশে উন্নয়ন যাত্রায় গর্বিত সারথি আমার সংবাদ।

স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের নির্ভুল খবর প্রকাশে সাহসিকতায় স্বীয় অবস্থান নিশ্চিত করেছে সংবাদমাধ্যমটি। নানা বাধা-বিপত্তি, চড়াই-উৎরাই ও ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে প্রকাশিত হচ্ছে।

বাংলাদেশে বর্তমানে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ঔজ্জ্বল্য ছড়ানোর যে কয়টি সংবাদপত্র রয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম আমার সংবাদ। রাজনীতি, অর্থনীতি, বিশ্বপরিস্থিতিসহ সমাজের অসঙ্গতি ও বৈষম্য তুলে ধরার ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা রাখছে।

দেশের প্রতিটি স্তরের অর্থাৎ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় হতে তৃণমূল এবং বিদেশে ঘটে যাওয়া ঘটনার পেছনের রহস্য উন্মোচন করে তথ্যবহুল সংবাদ পরিবেশনে নৈপুণ্যতা দেখিয়ে চলেছে আমার সংবাদ। পথচলার পাল্কে রঙিন সাফল্যের পালক সংযুক্ত হলো। ২০১২ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি যাত্রা শুরু করে আমার সংবাদ।

সেবা এবং সংগ্রাম দুটি বিষয়টিকে আলিঙ্গন করে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলছে আমার সংবাদ। সংবাদ মাধ্যম জনগণের অন্যতম সেবক। একমাত্র সংবাদপত্র এবং গণমাধ্যমকর্মীরা নিরলসভাবে জনগণের পাশে নির্ভার হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিপীড়িত, নিষ্পেষিত, দরিদ্র মানুষের অন্যতম শক্তি হলো সংবাদপত্র।

তাদের দুঃখ, দুর্দশা ফুটে উঠে পত্রিকার পাতায়। নীতির কথা বলে-যারা করে নীতিহীন কাজ, সংবাদপত্র বাধ সাধে তার সামনে। দুর্নীতি, ভূমি দখল, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, খুন, ধর্ষণসহ সব ধরণের অপকর্মের বিরুদ্ধে সাহসি উচ্চারণ হয় সংবাদপত্রে। সংবাদপত্রের মাধ্যমে গড়ে উঠে জনমত আর প্রতিহত হয় সকল অপচেষ্টা, অন্যায়।

নির্ভীক সাহসিকতার হবে না শেষ, আমরাই গড়বো দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ স্লোগানে দৈনিক আমার সংবাদ বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে জনগণের নির্ভরতার প্রতিক হয়ে উঠেছে। শাসন ব্যবস্থার সর্বাপেক্ষা হলো গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা। গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা জনগণের সঠিক চাহিদা পূরণে সক্ষম।

গণতন্ত্র চর্চা এবং তার পূর্ণ বিকাশের মধ্যে দেশ ও জাতির সর্বোচ্চ উন্নতি সম্ভব। গণতন্ত্রকে বিকশিত করতে প্রয়োজন এর সুষ্ঠু চর্চা। সুবিকশিত গণতন্ত্রের জন্য গণমাধ্যম অন্যতম অধ্যায়। স্বাধীন গণমাধ্যম গণতন্ত্রের অন্যতম শর্ত। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা সদৃঢ় করতে আমার সংবাদ সর্বদা সজাগ। ছাপা পত্রিকার পাশাপাশি অনলাইন সংস্করণের মাধ্যমে গোটা বিশ্বে তুলে ধরা হচ্ছে বস্তুনিষ্ঠু সংবাদ।

প্রতিটি ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে সংগ্রাম করে টিকে থাকতে হয়। আমার সংবাদও সংগ্রামের মধ্য দিয়েই আজকের অবস্থানে উঠে এসেছে। বাংলাদেশে প্রতিদিন অসংখ্য সংবাদপত্র প্রকাশিত হচ্ছে। প্রযুক্তির ছোঁয়ায় সংবাদপত্রের ক্লান্তিকালে আমার সংবাদকে সংগ্রাম করে টিকে থাকতে হচ্ছে।

এক ঝাঁক সাংবাদিক, প্রবীণ কলামিস্ট, সাহিত্যিক ও গুণীজনদের সমন্বয়ে নিয়মিত বাজারে যাচ্ছে পত্রিকাটি। তুলে ধরা হয় ঘটনার পেছনের রহস্য। দেশ বরণ্যে রাজনীতিবিদ, অর্থনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, কলামিস্ট, সাহিত্যিক লেখক ও সমাজ সেবকের লেখা, প্রবন্ধ থাকছে নিয়মিত। এছাড়া রাজনীতি, অর্থনীতি, খেলাধুলা, অপরাধ, বিনোদন, আন্তর্জাতিক, শিক্ষা, শেয়ারবাজারসহ নানা বিশ্লেষণধর্মী খবরা-খবরও থাকে।

দৈনিক আমার সংবাদ জন্মলগ্ন হতে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনের স্বপক্ষে কাজ করছে। বর্তমান সরকারের সময়ে নেয়া উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের তথ্য তুলে ধরছে নিরলসভাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব উন্নত বাংলাদেশের যাত্রার প্রতিটি কর্মকাণ্ডের তথ্য তুলে ধরা হয় গুরুত্বসহকারে।

আগামী ১৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকী সালকে মুজিববর্ষ হিসেবে পালন করবে সরকার। বাংলাদেশের স্বাধীকার আন্দোলনের এ মহানায়কের শতবর্ষ ঘিরে মহোৎসবে রূপ নিবে দেশ।

রাজনীতির এ মহাকবির আদর্শ তুলে ধরা হবে নতুন প্রজন্মের মধ্যে, যার মাধ্যমে উঠে আসবে বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস। মুজিব শতবর্ষ উদযাপনের সারথি হবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমার সংবাদ পরিবার। স্বাধীনতা সংগ্রামের এ মহানায়কের বর্ণাঢ্য জীবন এবং চিন্তা চেতনা দেশের প্রতিটি প্রাণে ছড়িয়ে দিতে নেয়া হয়েছে পরিকল্পনা।

দৈনিক আমার সংবাদ’র সম্পাদক ও প্রকাশক হাশেম রেজা বলেন, ২০১২ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি যাত্রা শুরুর পর পাঠকের চাহিদা পূরণ করে আমার সংবাদ নিজস্ব স্থান অর্জন করেছে। পাঠকের ভালোবাসায় আমার সংবাদ ডিএফপির শীর্ষ দশে উঠে এসেছে।

শুরুর দিন হতেই মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে জনগণের পাশে রয়েছি। আগামীতে পাঠক, শুভান্যুধায়ী এবং আমার সংবাদ পরিবারের একনিষ্ঠ সদস্যদের সহযোগিতায় আমাদের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে।

আমারসংবাদ/এমএআই