মঙ্গলবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

৫ ফাল্গুন ১৪২৬

ই-পেপার

নিজস্ব প্রতিবেদক

জানুয়ারি ২৫,২০২০, ০৩:৪৯

ফেব্রুয়ারি ০৯,২০২০, ১০:০৯

‘ইসির মধ্যে ধরি মাছ না ছুঁই পানি অবস্থা’

ইসির মধ্যে ধরি মাছ না ছুঁই পানি অবস্থা। কেউ যেন দায়িত্ব নিতেই চাচ্ছেন না। যাতে সরকারি দল বা সরকার তাদের উপর বিরাগভাজন হবে। এটা কিন্তু একটা অশনি সংকেত। তার মানে অন্যায় আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মন্তব্য করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক -সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার। শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে মেয়র প্রার্থীদের তথ্য উপস্থাপন নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে সুজনের পক্ষ থেকে এ অভিযোগ করা হয়। সাবেক তত্ত্বধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন-সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক দিলীপ কুমার সরকার, সুজনের সদস্য ক্যামেলিয়া চৌধুরীসহ অনেকেই। তিনি বলেন, ইভিএমের মাধ্যমে নির্বাচনের ফলাফলে কারচুপির যথেষ্ট সুযোগ আছে। ইভিএমে নির্বাচন কমিশনের দেয়া ফলাফল যাচাই বাছাইয়ের কোন সুযোগ থাকে না। এছাড়া প্রার্থীদের আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়েও কমিশন নিষ্ক্রিয়। গত নির্বাচনের মতই ২৫ শতাংশ ভোটারের উপস্থিতি ছাড়াই সেই ভোটগুলো নির্বাচনী কর্মকর্তারা দিয়ে দেয়ার সুযোগ এবারও থাকলে ভোটার ছাড়াই ভোট দেয়ার ক্ষেত্র তৈরি হবে বলেও মনে করে সুজন। এছাড়া মেয়র প্রার্থীদের মানের অবনতি হয়েছে বলে এসময় জানানো হয়। প্রার্থীদের অর্থ সম্পদ বাড়ার সাথে সাথে তাদের শিক্ষার মান কমার অভিযোগ করা হয় সুজনের পক্ষ থেকে। নির্বাচনী প্রার্থীদের তথ্য না দেয়ায় ক্ষোভ জানিয়ে সুজন সম্পাদক বলেন, কমিশন এবার তুঘলকি কাণ্ড ঘটিয়েছে। নির্বাচন কমিশন থেকে এর আগে সব সময় তথ্য পেয়ে এসেছি। এবার তারা তথ্য দিচ্ছে না। এটার কারণ কি, নাকি এটা তাদের অযোগ্যতা, তা আমরা বুঝতে পারছি না। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে একাধিকবার চিঠি দিয়েছি। তাতেও কোন জবাব না পেয়ে সর্বশেষ আইনি নোটিশ পাঠিয়েছি তা সত্ত্বেও তারা কোনো টু শব্দ করছে না। তিনি বলেন, তথ্য পাওয়ার অধিকার মানুষের মৌলিক অধিকারের অংশ। এ বিষয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। বিশেষ করে নির্বাচনে এ তথ্য জানা অপরিহার্য। তারপরও নির্বাচন কমিশন কোনো কর্ণপাত করছে না। আমারসংবাদ/এমএআই