রবিবার ০৫ এপ্রিল ২০২০

২২ চৈত্র ১৪২৬

ই-পেপার

ফেব্রুয়ারি ২০,২০২০, ০৫:২৭

ফেব্রুয়ারি ২০,২০২০, ০৫:২৭

চলে গেলেন কাট, কপি এবং পেস্টের উদ্ভাবক

না ফেরার দেশে চলে গেলেন কাট, কপি এবং পেস্টের উদ্ভাবক কম্পিউটার বিজ্ঞানী ল্যারি টেসলার। ৭৪ বছর বয়সে মারা গেছেন এই প্রখ্যাত কম্পিউটার বিজ্ঞানী। সোমবার মৃত্যু হয় তাঁর। আইফোনের পূর্বসূরিও তাঁকেই বলা হয়।

টেসলারের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছে তার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল জেরোক্স। একটি টুইটে টেসলারের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে জেরোক্সের পক্ষ থেকে বলা হয়, ধন্যবাদ তার বৈপ্লবিক চিন্তাকে যেটা আপনার কাজকে আরো সহজ করেছে।

নিউইয়র্কে জন্ম ল্যারি টেসলারের। স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে স্নাতক হন ১৯৬০ সালে। পেশার দিকে প্রথমে ছিলেন প্রোগ্রামার। পরে হয়ে ওঠেন ইনভেন্টর। মিডপেনিনসুলা ইউনিভার্সিটিতে একসময় কম্পিউটার সায়েন্সে অধ্যাপনাও করেছেন ল্যারি। কম্পিউটারের গতানুগতিক প্রযুক্তিতে নতুনত্ব আনাই ছিল তাঁর লক্ষ্য।

স্ট্যানফোর্ড আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স ল্যাবোরেটরিতে গবেষণার সময়েই কমপেল নামে সিঙ্গল অ্যাসাইনমেন্ট ল্যাঙ্গুয়েজ আবিষ্কার করেন। পরে জেরক্স পালো অল্টো রিসার্চ সেন্টারের সদস্য হয়েছিলেন ল্যারি।

সেখানে কাজ করার সময়েই ১৯৭০ সালে তিনি আবিষ্কার করেন কম্পিউটারের কাট-কপি-পেস্ট কম্যান্ড। তাঁর হাত ধরে নতুন দিশা পায় কম্পিউটার বিজ্ঞান। ‘ব্রাউজার’ কথার জনকও তিনি। ১৯৭৬ সালে ওয়েব ব্রাউজারের শব্দটির প্রচলন করেন তিনি।

লিজা, ম্যাসিনতোশ ও নিউটাউন, এই তিনটি ইউজার ইন্টারফেজ ডিজাইন ল্যারি টেসলারের হাত ধরেই হয়েছিল। ১৯৮০ সালে জেরক্স পার্ক ছেড়ে অ্যাপলে যোগ দেন ল্যারি টেসলার। অ্যাপলনেটের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন একসময়।

পরে অ্যাডভান্সড টেকনোলজি গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও চিফ সায়েন্টিস্ট হন। ২০০৫ সালে অ্যাপল ছেড়ে ইয়াহুতে যোগ দেন। ২০০৮-এ ২৩অ্যান্ডমি-র সদস্য হন। ২০১১ সালে যোগ দেন আমাজনে।

আমারসংবাদ/এমএআই