মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০

১৯ শ্রাবণ ১৪২৭

ই-পেপার

আমার সংবাদ ডেস্ক

জুন ৩০,২০২০, ০৪:২৭

জুন ৩০,২০২০, ০৪:২৭

চাঁদে শৌচাগার, নকশা পাঠিয়ে জিতে নিন নাসার পুরস্কার

 

চাঁদকে এখনও ঠিকমতো চিনতে পারেনি মানুষ। অনেক কিছুই অনাবিষ্কৃত রয়ে গিয়েছে। সেগুলি আবিষ্কার করতে চাই গবেষণা। আর সেই কারণেই এবার চাঁদে একটি স্থায়ী বেস ক্যাম্প বানাতে চায় নাসা। সেখানে বিজ্ঞানীরা গিয়ে গবেষণা চালাবেন। তার তোড়জোড়ও শুরু হয়ে গিয়েছে। তাই এবার চাঁদে শৌচাগার তৈরির পরিকল্পনা করেছে নাসা।

চাঁদের শৌচাগার নির্মাণের জন্য জনসাধারণের সাহায্য চেয়েছে নাসা। উপায় বাতলে দিতে পারলেই মিলবে নগদ পুরস্কার।

নাসার তরফে জানানো হয়েছে, এমন একটি শৌচাগারের মডেল বানাতে হবে যা শুধু মাইক্রোগ্র্যাভিটিতে কাজে আসবে এমন নয়। লুনার গ্র্যাভিটিতেও যেন তা কাজে আসে। এমন একটি দুর্দান্ত টয়লেট বানাতে পারলে মিলবে ৩৫ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কার। নাসা এই প্রতিযোগিতার জন্য ১৭ আগস্ট পর্যন্ত সময়সীমা নির্ধারণ করেছে।

এর জন্য নাসা হিরাক্সের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছে। নাসা ২০২৪ সালের মধ্যে চাঁদে একটি বেস ক্যাম্পের পরিকল্পনা করছে। তার জন্যই এই তোড়জোড়। চাঁদের অভিকর্ষ পৃথিবীর এক ষষ্ঠাংশ হওয়ায় শৌচকার্য এখানে খুব সহজ নয়। মহাকাশেও এই সমস্যা রয়েছে। এরই একটা সমাধান চাইছে নাসা। তবে এই শৌচাগার নির্মাণের কিছু নিয়ম রয়েছে। এটি কোনওভাবেই ০.১২ ঘনমিটারের (৪.২ কিউবিক ফুট) বেশি জায়গা দখল করতে পারবে না। আর এক শব্দের মাত্রা থাকতে হবে ৬০ ডেসিবেলের মধ্যে। এটি যেন একসঙ্গে এক লিটার মূত্র ও ৫০০ গ্রাম মল ধারণ করতে সক্ষম হয়। পাশাপাশি প্রতিদিন ১১৪ গ্রাম মেনস্ট্রুয়াল ব্লাডও যেন ​​ধারণ করতে পার এই শৌচাগারটি। এছাড়া কারও বমি পেলেও যেন তার বন্দোবস্ত থাকে এখানে। যেহেতু একাধিক ব্যক্তি এটি ব্যবহার করবেন, তাই টয়লেটটি পরিষ্কার থাকতে হবে। এগুলিও যেন ডিজাইনের অন্তর্ভূক্ত থাকে।

আমারসংবাদ/জেআই