বুধবার ০৮ জুলাই ২০২০

২৪ আষাঢ় ১৪২৭

ই-পেপার

নিজস্ব প্রতিবেদক

এপ্রিল ৩০,২০২০, ১১:৪০

মে ০১,২০২০, ০২:১২

করোনাভাইরাস

মে পর্যন্ত ৫০০০০ মানুষ আক্রান্ত হতে পারে, মৃত্যু ১০০০

প্রায় সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে জীবনঘাতী করোনাভাইরাস। দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত (কোভিড-১৯) প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

এরপর থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে।

বিশেষজ্ঞদের করা ভবিষ্যত প্রক্ষেপণের (প্রজেকশন) তথ্য বলছে, আগামী ৩১ মে পর্যন্ত দেশে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। এসময় ১ হাজার মানুষের মৃত্যু হতে পারে।

আরেকটি প্রক্ষেপণের তথ্য বলছে, এই আক্রান্তের সংখ্যা হতে পারে প্রায় ১ লাখ।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, এই প্রক্ষেপণ বিবেচনায় রেখে প্রাণঘাতী করোনা নিয়ন্ত্রণ ও চিকিৎসার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) সর্বশেষ চিকিৎসা নির্দেশনা অনুযায়ী করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ২০% রোগীর হাসপাতালে সেবা দরকার পড়ে। সর্বোচ্চ সক্ষমতা অনুযায়ী স্বাস্থ্যসেবার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে।

বিশ্বব্যাংক বলছে, জনসংখ্যা বেশি হলেও দক্ষিণ এশিয়ায় করোনা সংক্রমণ হার তুলনামূলক কম। করোনা পরীক্ষা কম হওয়ায় এই হার কম বলে মন্ত্যব করেছেন অনেকেই।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরীক্ষার সংখ্যা বাড়লে আক্রান্ত শনাক্ত হারও বাড়বে, যেমন এখন বাড়ছে বাংলাদেশে।

দক্ষিণ এশিয়ায় পরীক্ষার হারও বাড়লেও শনাক্ত হওয়ার হার ইউরোপ ও আমেরিকার মতো নয়। ইউরোপ ও আমেরিকায় করোনা যে ক্ষমতা দেখাচ্ছে পৃথিবীর অন্য এলাকায় তা দেখাচ্ছে না।

আমারসংবাদ/এআই