বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০

২১ শ্রাবণ ১৪২৭

ই-পেপার

স্পোর্টস ডেস্ক

ডিসেম্বর ১১,২০১৯, ১২:৪১

ফেব্রুয়ারি ০৯,২০২০, ১০:০৯

বার্সার কাছে হেরে ইন্টার মিলানের বিদায়

বার্সেলোনার জন্য ছিল শুধুমাত্রই নিয়মরক্ষার ম্যাচ, গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে শেষ ষোলো নিশ্চিত হয়ে গেছে আগেই। কিন্তু বরুশিয়া ডর্টমুন্ড এবং ইন্টার মিলানের জন্য ছিল ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচ। সেই ম্যাচে বার্সেলোনার কাছে হেরে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের এবারের আসর থেকে বিদায় নিয়েছে ইতালিয়ান জায়ান্ট ইন্টার মিলান। আর তাদের হারের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্লাভিয়া প্রাহাকে হারিয়ে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে জার্মান ক্লাব ডর্টমুন্ড। মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ‘এফ’ গ্রুপের শেষ ম্যাচে বার্সেলোনার কাছে ২-১ ব্যবধানে হেরেছে ইন্টার মিলান। শেষ ষোলো নিশ্চিত করতে ড্র কিংবা জয় কোনোটাই যথেষ্ট ছিল না তাদের জন্য, তাকিয়ে থাকতে হতো গ্রুপের অন্য ম্যাচের দিকে। এমন সমীকরণ মাথায় নিয়ে নিজেদের মাঠ সান সিরোতে খেলতে নামে বার্সেলোনার বিপক্ষে সর্বশেষ চার ম্যাচে জয়ের মুখ না দেখা ক্লাবটি। তবে হোম ম্যাচ বলেই হয়ত আশাবাদী ছিল দলটি। তাদের আশার পালে হাওয়া লাগে বার্সেলোনা দ্বিতীয় সারির দল মাঠে নামালে। মেসি, সুয়ারেজসহ মূল একাদশের সাতজনকে ছাড়া মূলত ‘বি’ দল নিয়ে মাঠে নামে বার্সার আক্রমণভাগকে শুরুতে ধুঁকতে দেখা যায়। মাঝমাঠেও ছিল না তেমন নিয়ন্ত্রণ। সেই সুযোগে চাপ বাড়ায় স্বাগতিকরা। ১৮ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো তারা, কিন্তু ক্রিস্তিয়ানো বিরাগির জোরালো শট দারুণ ক্ষিপ্রতায় রুখে দেন বার্সেলোনার দ্বিতীয় পছন্দের গোলরক্ষক নেতো। খেলার ধারার বিপরীতে ২৩ মিনিটে কার্লেস পেরেসের গোলে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা এগিয়ে যায়। প্রথমার্ধ শেষের ঠিক আগে ৪৪ মিনিটে সৌভাগ্যসূচক গোলে সমতা ফেরায় স্বাগতিকরা। মার্তিনেসের থেকে বল পেয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নিচু জোরালো শট নেন লুকাকু। একজনের পায়ে লেগে দিক পাল্টে বল ঠিকানা খুঁজে নেয়। জয়ের জন্য মরিয়া ইন্টার দ্বিতীয়ার্ধে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে। ম্যাচের ৬১তম মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোলের সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করেন এ মৌসুমেই ম্যানইউ থেকে ইতালিতে পাড়ি জমানো লুকাকু। এরপর মার্তিনেস ও লুকাকু একবার করে লক্ষ্যভেদ করলেও অফসাইডের ফাদে পড়ে তা বাতিল হয়। ম্যাচের ৮৫তম মিনিটে পেরেসকে বসিয়ে আনসু ফাতিকে মাঠে নামান বার্সার কোচ ভালভেরদে। পরের মিনিটেই কাঙ্ক্ষিত গোল করে কোচের আস্থার প্রতিদান দেন ১৭ বছর বয়সী ফাতি। সুয়ারেসের সঙ্গে একবার বল দেওয়া নেওয়া করে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নিচু শটে বল লক্ষ্যভেদ করে দলের জয় নিশ্চিত করেন তিনি। অন্যদিকে, ইন্টারের হারের সুযোগ কাজে লাগিয়ে শেষ ষোলোয় উঠেছে বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। একই সময়ে শুরু হওয়া গ্রুপের আরেক ম্যাচে স্লাভিয়া প্রাহাকে একই ব্যবধানে হারিয়েছে জার্মানির ক্লাবটি। দশম মিনিটে জাদান সাঙ্কো ডর্টমুন্ডকে এগিয়ে নেন, কিন্তু ৪৩তম মিনিটে প্রাহাকে সমতায় ফেরান সৌচেক। ম্যাচের ৬১তম মিনিটে জুলিয়ান ব্যান্ডটের গোলে পুনরায় এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। বাকি সময়ে আর কোনো গোল না হওয়ায় জয় নিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হিসেবে পরের রাউন্ডের টিকিট পায় তারা। ছয় ম্যাচে চার জয় ও দুই ড্রয়ে গ্রুপ চ্যাাম্পিয়ন বার্সেলোনার পয়েন্ট ১৪। গ্রুপ রানার্সআপ হওয়া ডর্টমুন্ডের পয়েন্ট ১০। বিদায় নেয়া ইন্টার মিলান ও স্লাভিয়া প্রাহার পয়েন্ট যথাক্রমে ৭ ও ২। জেডআই