শিরোনাম

গণধর্ষণের পর বাবা-মেয়েকে হত্যায় ৫ আসামির ফাঁসি

খুলনা প্রতিনিধি   |  ১০:২৭, জুলাই ১৬, ২০১৯

খুলনায় গণধর্ষণের পর এক্সিম ব্যাংকের কর্মকর্তা পারভীন সুলতানা ও তার বাবা ইলিয়াস চৌধুরীকে হত্যা মামলার রায়ে পাঁচ আসামিকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (১৬জুলাই) দুপুরে খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক মোহা. মহিদুজ্জামানের আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদ আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি এ রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৫ আসামি হলো-নগরীর লবণচরা বুড়ো মৌলভী’র দরগা এলাকার শেখ আব্দুল জলিলের দুই ছেলে পিটিল ও শরিফুল ইসলাম, একই এলাকার মৃত সিকদারর ছেলে পলাশ এবং অহিদুল ইসলামের ছেলে সাঈদ ও লিটন। তাদের মধ্যে ঘটনার পর থেকেই শরিফুল ইসলাম পলাতক রয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন-বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদ আহমেদ এবং বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার পক্ষে অ্যাসিস্টান্ট পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) কাজী সাব্বির আহমেদ ও সংস্থার খুলনা জেলা সমন্বয়কারী অ্যাভোকেট মো. মোমিনুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর রাতে মহানগরীর লবনচরা থানা এলাকার বুড়ো মৌলভী (রহ.) দরগাপাড়া ৩নং সড়কের ‘ঢাকাইয়া হাউস’ নামে বাড়িতে দুর্বৃত্তরা ইলিয়াস চৌধুরী ও তার মেয়ে পারভীন সুলতানাকে শ্বাসরাধ করে হত্যা করে।

হত্যার আগে দুর্বৃত্তরা পারভীন সুলতানাকে ধর্ষণ করে। পরে সেফটিক ট্যাংকির মধ্য ফেলে লাশ গুমের চেষ্টা করে। পারভীন সুলতানা এক্সিম ব্যাংক খুলনার কালিবাড়ী শাখার ক্যাশ কর্মকর্তা ছিলেন।

এ ঘটনায় ২০ সেপ্টেম্বর নিহত ইলিয়াস চৌধুরী’র ছেলে রেজাউল আলম চৌধুরী বিপ্লব বাদী হয়ে লবনচরা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলায় একই এলাকার নোয়াব আলী গাজী ওরফে নবাব এবং আইয়ূব আলী মিস্ত্রি’র ছেলে আসলাম মিস্ত্রি’র নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয় ৬/৭ জনকে আসামি করা হয়।

এরইমধ্য পুলিশ বুড়ো মৌলভীর (র.) মাজার এলাকার আবুল কালামের ছেলে মো. লিটনকে গ্রেপ্তার করে।

ওই বছরই ২১ সেপ্টেম্বর খুলনা মহানগর হাকিম আয়শা আক্তার মৌসুমী’র আদালতে লিটন ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে হত্যা ও ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন।

পরে ২২ সেপ্টেম্বর নিহতের ভাই রজাউল আলম চৌধুরী বিপ্লব বাদী হয়ে পাঁচ জনের বিরুদ্ধে লবনচরা থানায় নতুন করে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

২০১৬ সালের ৯ মে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. কাজী বাবুল খুলনা’র মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এ মামলার চার্জশিট দাখিল করেন।

এছাড়া ধর্ষণের মামলায় একই বছরের ২৪ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

 এমএআই

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত