মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

১৩ আশ্বিন ১৪২৭

ই-পেপার

আমার সংবাদ ডেস্ক

সেপ্টেম্বর ১৫,২০২০, ০১:২০

সেপ্টেম্বর ১৫,২০২০, ০১:২৩

কথায় কথায় প্রেমিকার চোখে কান্না? জেনে নিন তাঁর চরিত্র...

সাধারণত আমরা প্রায় সকেলই মনে করি যে, পুরুষের থেকেও মহিলারা বেশি আবেগপ্রবণ হয়৷ তাই কথায় কথায় তাদের চোখে কান্না আসে বলেও অনেক ক্ষেত্রে বলা হয়৷

অনুভূতি হীন মানুষ হয় না৷ সেই সব অনুভূতির বর্হিপ্রকাশ এক একজনের এক এক রকম করে হয়৷ অনেকেই মনে করেন যে, পুরুষের থেকেও মহিলারা বেশি আবেগপ্রবণ হন৷ তাই কথায় কথায় তাদের চোখে কান্না আসে বলেও অনেক ক্ষেত্রে বলা হয়৷

মহিলারা মায়ের রূপ৷ এরা যে, সংবেদনশীল এবং মমতাময়ী হবেন, সেটাই স্বাভাবিক৷ তবে অনেকেই আবার সেই চরিত্রটিকে দুর্বল হিসেবে ভেবে নেন৷ কিন্তু মনোবিদদের ত্বত্ত্ব বলছে অন্য কথা৷

আর্ন্তজাতিক সংবাদমাধম্যে প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, যারা বেশি কাঁদেন, বা যাদের চোখে পানি আসে তাড়াতাড়ি, তাদের মধ্যে রয়েছে এই বৈশিষ্টগুলি৷

♦ জীবনে কোনও বড় ধাক্কা বা কষ্ট পেলে সেটা চোখের জলের মাধ্যমে বার করে নিজেদের কষ্ট কম করতে পারেন এই ধরণের মানুষ৷ তাই তাদের মনে চাপ কম পড়ে এবং কেঁদে নিজেকে চাপমুক্ত করতে পারেন এরা৷

♦ যারা কাঁদের তারা সাহসী হন৷ এমনই মত মনোবিদদের৷ অর্থাৎ কান্না চেপে রেখে নিজেকে দুর্বল প্রতিপন্ন করতে চান না অনেকে৷ কিন্তু এটা আদতে নিজেকে ভীতুই প্রমাণ করা৷ সুখে যেমন আনন্দ পাওয়া যায়, তেমন দুঃখেও চোখের জল ফেলা যায়৷ এতে কোনও লজ্জা নেই৷ যারা এই মতে বিশ্বাস করে চোখের জল ফেলতে দ্বিধা করেন না তারা আদতে সাহসী, ভীতু বা দুর্বল নন৷

♦ এই ধরণের মানুষের জীবনের পথে চলা অনেক বেশি সহজ হয়৷ কারণ এরা জীবনে সমতা বজায় রাখতে সক্ষম হন৷ এরা কেঁদে মন হাল্কা করে ফেলতে পারেন৷ অন্যদিক না কেঁদে মনে কষ্ট জমিয়ে রাখলে তা জীবনের কষ্ট আরও বাড়াতে ও পরবর্তীতে তা শরীরের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে৷