মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ২০২০

৪ কার্তিক ১৪২৭

ই-পেপার

আমার সংবাদ ডেস্ক

অক্টোবর ১৪,২০২০, ০৩:০৬

অক্টোবর ১৪,২০২০, ০৩:০৬

যুদ্ধে যেতে দাঁত দিয়ে কামড়ে সাপকে হত্যা করেন নারীরা

সাপ শুনলেই অনেকে ভয়ে এতটা আঁতকে ওঠেন যে এই বুঝি প্রাণটাই চলে গেল। প্রায় সবার মাঝেই এমন ভীতিকর অনুভুতি হয়। তবে জানেন কি বিশ্বে অনেকেই আছে যারা সাপকে কখনো আগলে রেখেছেন বন্ধু হিসেবে কেউবা পোষেন শখের বসে। সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হলো, সাহসিকতার প্রমাণ দিতে কুর্দিশ নারীরা দাঁত দিয়ে কামড়ে সাপকে হত্যা করেন। কি ভাবতেই নাভিঃশ্বাস হওয়ার উপক্রম হয়তো!

আজব এই দুনিয়ায় কত কিছুই না নিত্যদিন ঘটছে। সাপে ভয় আছে অনেকেরই। আবার এমন অনেকে আছেন, যারা সাপ দিয়ে বিনোদন দিতে ও পেতে অদ্ভুত কাণ্ড করে থাকেন।

সাঁতারে বাড়তি বিনোদন নিতে নিজের পোষা অজগরটি নিয়ে সুইমিংপুলে নেমে পড়লেন ইসরায়েলের এক বালিকা। শুধু তাই নয়, ৮ বছরের ইনবার বলছেন, সাপটি নাকি করোনায় স্কুল বন্ধ থাকার সময় তাকে ভালোই সঙ্গ দিতো।

এ সাপটিকে নিয়েই বেড়ে উঠেছেন চীনের বিংসহে। কিশোর বয়সে বিংসহে তার পরিবারের পোষা এ অজগরটি ছাড়া ঘুমাতে পারতেন না। সাপটিও এভাবে বন্ধু হয়ে ঘুম পাড়াতো বিংসহেকে।

পুরুষ সৈনিকদের সঙ্গে যুদ্ধে যেতে চাইলে ইরাকের কুর্দি নারীদের প্রমাণ দিতে হয় সাহসিকতার। কুর্দিশ গণতান্ত্রিক দলের সদস্য এ মেয়েটি সাহসিকতার প্রমাণ দিতে কামড়ে ধরতে হয় সাপটিকে।

বিশ্বের অনেক দেশেই সেনাসদস্যদের সাপের ট্রেনিং করতে হয় যেন বনে-জঙ্গলে যে-কোনো পরিবেশ মোকাবেলা করতে পারে তারা। ছবিতে থাইল্যান্ডের নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তা দেখাচ্ছেন জঙ্গলে অভিযানের সময় কীভাবে সাপের আক্রমণ প্রতিহত করতে হয়।

সমুদ্রতীরবর্তী দেশগুলোতে মাছের স্পা বেশ জনপ্রিয়। তাই বলে সাপের স্পা? হ্যাঁ, দ্বীপের দেশ ইন্দোনেশিয়ায় বেশ জনপ্রিয় এটি। মোটা এবং ওজনে ভারী এমন সাপ দিয়ে স্পা হাউসগুলোতে চলছে শরীর মাসাজ।

ইন্দোনেশিয়ার স্পা হাউসগুলোতে দেখা যায় বিভিন্ন জাতের সাপ দিয়ে স্পা করা হচ্ছে। বাহারি রংয়ের সাপগুলো এঁকেবেঁকে পিঠের উপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে আর আরাম দিচ্ছে গ্রাহকদের।