শিরোনাম

‘আবরার হত্যা স্বাধীনতায় আঘাত করেছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১৩:৪০, অক্টোবর ১০, ২০১৯

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, ছাত্ররাজনীতি এখন লেজুরবৃত্তি রাজনীতি। দেশ এই লেজুরবৃত্তি রাজনীতির ফল ভোগ করছে। এই সময়ে এসেও স্বাধীন দেশে সর্বোচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভিতরে আবরারকে নৃশংস হত্যার ঘটনা কাম্য নয়।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। আবরার হত্যা সভ্যতা, সংবিধান ও স্বাধীনতার উপর আঘাত করেছে। এমন ঘটনা পরাধীন আমলেও ঘটে নাই। এ ঘটনা দেশে এক সংকটময় পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে।

ড. কামাল হোসেন বলেন, যেভাবে একটি মেধাবী ছেলেকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে, তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। এ রকম ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তারা জানোয়ার, জানোয়ারের থেকেও নিকৃষ্ট। যে রাজনীতি ছেলেদের পশুতে পরিণত করেছে, তা থেকে দেশের শিক্ষাঙ্গনকে মুক্ত করতে হবে।

আবরার হত্যার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়ে ড. কামালা হোসেন বলেন, উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি করতে হবে। যেখানে সাবেক বিচারপতি, সাবেক সচিব, সাবেক আইজিপিসহ অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা থাকবেন। যারা গভীর থেকে তদন্ত করে হত্যাকাণ্ডের নেপথ্য ও আসল ঘটনা তুলে আনতে পারবেন।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিকে সংকটময় উল্লেখ করে তা থেকে দেশকে মুক্ত করতে কার্যকর গণতন্ত্র ও সুশান প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে সকলকে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহবান জানান তিনি।

এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ড.কামাল বলেন, সরকারের দুর্নীতি, লুটপাট, ভিন্নমত সহ্য করতে না পারা ও দেশের গণতন্ত্রহীনতার দায়ে দলীয় এমপিদের সংসদ থেকে পদত্যাগের বিষয় নিয়ে তারা ভাবছেন। দলীয় ফোরামে আলোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানান গণফোরাম সভাপতি।

ড. কামাল অভিযোগ করে বলেন, দেশ আজ ধ্বংসের মুখোমুখি । জনগনের মালিকানা জোরপূর্বক ছিনতাই করে ক্ষমতা দখলের কারণে আজ গণতন্ত্রের শেষ চিহ্নটুকুও মুছে যেতে বসেছে। দেশে সুশাসন নেই।

সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য রাষ্ট্রের সকল অঙ্গ ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করা হয়েছে। গণতান্ত্রিক নূন্যতম ব্যবস্থার পরিবর্তে কর্তৃত্ববাদী শাসন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ক্ষমতা কেন্দ্রীভুত দূর্নীতির মহাউৎসব আজ দৃশ্যমান।

তিনি বলেন, ভিন্নমত দমন, মিথ্যা মামলা, গুম, বিচার বহির্ভূত হত্যা, সভা সমাবেশ করতে বাধা নিষেধ ও ডিজিটাল নিরাপত্তার মতো আইন তৈররি মাধ্যমে সরকার প্রকাশ্যে জনগনের মত প্রকাশের স্বাধীনতা হরণ করেছে।

ড. কামাল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, সরকারের ছত্রছায়ায় গুটিকয়েক চক্র কোটি কোটি টাকা ব্যাংক লুট, টেন্ডারবাজি করেছে আর্থিক ভাগাভাগি নিয়ে খুনখারাবি চালাচ্ছে। দেশ আজ ক্যাসিনো সংস্কৃতি চালু হয়েছে। মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নেই।

তিনি বলেন, শিক্ষা অঙ্গনে সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠে ভাইস চ্যান্সেলর হতে শুরু করে শিক্ষক থেকে পিয়ন পর্যন্ত আজ দুর্নীগিগ্রস্ত। এসব থেকে দেশবাসী পরিত্রান চায়।

এসএ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত