শিরোনাম

পীরগঞ্জে পঞ্চগড় এক্সপ্রেসের যাত্রাবিরতির দাবি ৩ উপজেলাবাসীর

সবুজ আহমেদ, পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও)  |  ১৭:০২, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

পঞ্চগড়-ঠাকুরগাও-পীরগঞ্জ-দিনাজপুর হয়ে ঢাকা রেল রুটে ৩টি আন্তঃনগর, একটি মেইল, একটি লোকাল এবং একটি ডেমু ট্রেন চালু রয়েছে। এর মধ্যে সবগুলো ট্রেনই পীরগঞ্জ স্টেশনে থামে। শুধুমাত্র পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনটিই এখানে থামে না! অথচ এ স্টেশন থেকে পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল ও হরিপুর উপজেলার শত শত যাত্রী লোকালসহ ঢাকাগামী অন্যান্য আন্ত নগর ট্রেনে উঠা নামা করে।

অন্যান্য আন্তঃনগর ট্রেনের মত ঠাকুরগাওয়ের পীরগঞ্জ স্টেশনেও পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রা বিরতি চায় তিন উপজেলার এলাকাবাসী। তাদের দাবী এ স্টেশন থেকে পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল ও হরিপুর উপজেলার যাত্রীরা লোকালসহ ঢাকাগামী অন্যান্য আন্তঃনগর ট্রেনে উঠা নামা করার সুযোগ পেলেও পঞ্চগড় এক্সপ্রেসের যাত্রা বিরতি না থাকায় তারা চরম ভোগান্তি শিকার হচ্ছেন। তিন উপজেলাবাসী দুর্ভোগ লাঘবে এ স্টেশনে ঢাকাগামী পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রা বিরতি চান তারা।

শুধুমাত্র পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেন ধরতে এখানকার যাত্রীদের ঠাকুরগাও অথবা দিনাজপুরে যেতে হয় এবং ঢাকা থেকে আসার পথে ঐসব স্টেশনেই নামতে হয়। এতে তারা চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েন।

তাছাড়া জেলা পর্যায়ের অন্যান্য স্টেশনের চেয়ে এ স্টেশনের রাজস্ব আয় বেশী। এখান থেকে বেশী মানুষ ট্রেনে ভ্রমণ করেন। এখানে যে পরিমান টিকিট বরাদ্দ আছে তাতে বেশির ভাগ যাত্রীই আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট পায় না। চাহিদা ব্যাপক। বরাদ্দ সামান্য। পঞ্চগড় এক্সপ্রেস না দাড়ানোর কারণে এখানে সে ট্রেনের টিকিট বরাদ্দও নেই। তিন উপজেলার মানুষের দাবি এখানে যেন পঞ্চগড় এক্সপ্রেস থামানো হয়।

পীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আখতারুল ইসলাম বলেন, জনগনের দাবির মুলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাহারুল ইসলাম ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক নুরনবী চঞ্চলসহ বেশ কয়েকজন এ নিয়ে রেল মন্ত্রীর সাথে দেখা করে কথা বলেছি।

এখানকার গুরুত্বে কথা তুলে ধরেছি। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। অথচ লক্ষ লক্ষ মানুষের যৌক্তিক দাবী এটি। আমরা আশা করি এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষ সদয় হবেন।

হরিপুরের আব্দুর রশিদ, রানীশংকৈলের তাজুল ইসলাম নামে পঞ্চগড় এক্সপেসের দু’ট্রেন যাত্রী বলেন, কয়েক দিন আগে অন্য ট্রেনে টিকিট না পাওয়ার কারণে এ ট্রেনই তারা ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরেন।

পীরগঞ্জে ট্রেন না থামার কারণে তাদের দিনাজপুর স্টেশনে নেমে যেতে হয়। এতে তাদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। ট্রেনটি পীরগঞ্জে থামলে এমনটা হতো না। তাদের মত শত শত ট্রেন যাত্রীর অভিযোগ একই রকম। তারা পীরগঞ্জে যাত্রা বিরতি চায়।

পীরগঞ্জ রেল স্টেশন মাষ্টার গোলাম রব্বানী জানান, এখানে ঐ ট্রেন দাড়ানোর মত সকল প্রকার ব্যবস্থা রয়েছে। শুধু সিদ্ধান্তের অপেক্ষা। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

এমআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত