শিরোনাম

রাজমিস্ত্রি থেকে আধ্যাত্মিক ফকির!

ফটিকছড়িতে ভণ্ড ফকিরকে পুলিশে দিল এলাকাবাসী

ওমর ফয়সাল, ফটিকছড়ি (চট্টগ্রাম)   |  ০৯:১৫, অক্টোবর ১০, ২০১৯

ফটিকছড়িতে পুরুষশূন্য প্রবাসীর ঘরে রাত্রিযাপনকালে আবদুর শুক্কুর (২৫) নামের এক ভণ্ড ফকিরকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী।

বুধবার উপজেলার পাইন্দং ইউনিয়নের বেড়াজালি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ধৃত শুক্কুর ওই ইউনিয়নের হাইদচকিয়া গ্রামের ফরেস্টর দোকান এলাকার নুরুল আলমের ছেলে। তার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার সহজ সরল লোকদের সরলতার সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন তাবিজ, পানি পড়া, ঝাড়ঁফুক সহ নানা ভণ্ডামি ও প্রতারণার মাধ্যমে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয়ার বিস্তর অভিযোগ রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান আব্দুস শুক্কুর ছিল রাজমিস্ত্রির সহযোগী। দিনে রাজমিস্ত্রির কাজ শেষে রাতে বিয়ের অনুষ্ঠানে মেয়ে সেজে নাচতো। নাচার জন্য অনেকে তাকে ভাড়া করে নিয়ে যেত। কিন্তু হঠাৎ তার মধ্যে পরিবর্তন আসে। নানা কৌশল অবলম্বন করে রাতারাতি রাজমিস্ত্রি থেকে বনে যায় আধ্যাত্মিক ফকির! এলাকার সহজ-সরল মানুষ বিশেষ করে মহিলাদের বিভিন্ন অলৌকিকতার ফন্দি করে অসুখের চিকিৎসার নামে তাবিজ, ঝাড়ফুঁক, পানি পাড়া দেয়াসহ নানা প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। প্রতি বছর ওরশের আয়োজন করে বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজনও জড়ো করতো।

পরে তার এসব ভণ্ডামি বুঝতে পারে এলকার মানুষ। আশা-পূরণের নামে নানা অলৌকিকতার ভান করে মহিলাদের সাথে একান্ত সময় কাটাতো বলে অভিযোগ উঠে ভ- শুক্কুরের বিরুদ্ধে। এর পর থেকে স্থানীয়রা তার ভণ্ডামির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করে। বন্ধ করে দেয় ওরশের আয়োজন।

বেশ কয়েকবার ইউ.পি চেয়ারম্যান সরোয়ার হোসেন স্বপন সামাজিকভাবে শালিসের মাধ্যমে শুক্কুরকে মানুষ ঠকানোর এ কাজ তথা ভণ্ডামি করতে নিষেধ করেন। এর মধ্যে কিছু দিন নিরব থাকার পর সে আবারো একই কাজ শুরু করে। এলকার সুবিধাভোগী কতিপয় লোকজন তার এসব প্রতারণা ও ভণ্ডামির কাজে সহযোগিতা করতো বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

বিষয়টির নিশ্চিত করে স্থানীয় ইউপি সদস্য আনোয়ারুল আজিম জানান, মঙ্গলবার রাতে বেড়াজালী গ্রামের জনৈক প্রবাসীর ঘরে ভণ্ড ফকির শুক্কুরকে প্রবেশ করতে দেখে স্থানীয়রা। যেখানে প্রবাসীর স্ত্রী তাঁর তিন মেয়েকে নিয়ে বসবাস করেন। ভণ্ড ফকির পুরুষশূন্য ওই ঘরেই রাত কাটায়।

বিষয়টি আঁচ করতে পেরে বুধাবার সকালে ঘরটি ঘেরাও করে তাকে আটক করে উত্তম মাধ্যম দেয়। পরে পুুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে ভণ্ড শুক্কুরকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ফটিকছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ বাবুল আকতার জানান, বেড়াজালী এলাকার জনগণ শুক্কুর নামে এক ভণ্ড ফকিরকে আটকের কথা জানালে তাকে পুলিশ পাঠিয়ে থানায় নিয়ে আসা হয়। তার বিরুদ্ধে ঝাড়ঁফুক সহ নানা ভণ্ডামি ও প্রতারণার মাধ্যমে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আরআর

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত