মঙ্গলবার ০২ জুন ২০২০

১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

রাসেল মাহমুদ

প্রিন্ট সংস্করণ

এপ্রিল ০১,২০২০, ০৩:১৯

এপ্রিল ০১,২০২০, ০৩:১৯

উৎকণ্ঠায় এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা

করোনা ভাইরাসের কারণে কার্যত অচল রয়েছে দেশ। বন্ধ হয়ে গেছে স্বাভাবিক জীবন-যাপন। মহামারি এ রোগ থেকে বাঁচতে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

পিছিয়ে গেছে আগামী ১ এপ্রিল থেকে অনুষ্ঠিতব্য উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমান পরীক্ষা। ফের কবে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সে বিষয়েও নেই স্পষ্ট ঘোষণা। ফলে উৎকণ্ঠায় দিন কাটছে প্রায় ১২ লাখ পরীক্ষার্থীর।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিবছর ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি ও ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হয়। এবারো ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে এই পরীক্ষা স্থগিত করতে বাধ্য হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

আগে হরতাল-অবরোধেও একাধিকবার পরীক্ষা স্থগিত হয়েছে। কিন্তু স্থগিতের দিনই পরিবর্তিত তারিখ জানিয়ে দেয়া হয়েছে। কিন্তু করোনা ভাইরাসে গতিবিধি বোঝা না যাওয়ায় পরীক্ষার নতুন কোনো তারিখ ঘোষণা করতে পারছে না শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ফলে অনিশ্চয়তায় দিন পার করছে প্রায় ১২ লাখ পরীক্ষার্থী।

জানা গেছে, করোনার প্রাদুর্ভাবে প্রথম দফায় গত ১৭ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর দ্বিতীয় দফায় ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ বাড়লেও ধারণা করা হচ্ছে এ ছুটি বাড়তে পারে ঈদ পর্যন্ত। ফলে ঈদের আগে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়া অনেকটা অনিশ্চিত।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, করোনার প্রাদুর্ভাব স্বাভাবিক হওয়ার আগ পর্যন্ত এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া কঠিন হবে। আবার করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সাথে সাথেই পরীক্ষা শুরু করা যাবে না। এ জন্য শিক্ষার্থীদের কিছুদিন সময় দিতে হবে।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, এইচএসসি পরীক্ষার গ্রহণের প্রস্তুতি শেষ করেছে তারা। চলমান সংকট কাটলেই পরীক্ষার নতুন সূচি প্রকাশ করবে তারা।

এদিকে, করোনা ভাইরাসের কারণে প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাধ্যমিক পর্যায়ের প্রথম সাময়িক ও সিটি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। মার্চ মাসের শেষের দিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর সিটি পরীক্ষার সূচি ঘোষণা করা হয়েছিল।

আর জুন-জুলাইয়ে ষান্মাষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় এপ্রিলের শুরুতেই প্রথম সাময়িক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে সিটি এবং প্রথম সাময়িক পরীক্ষা স্থগিত করতে হয়েছে। অনেক স্কুল থেকেই শিক্ষার্থীদের এসএমএস বা ফোন করে জানিয়ে দিয়েছে, বাসায় ষান্মাষিক পরীক্ষার পড়া শেষ করতে। ঈদের পর স্কুল খুললেই পরীক্ষা হবে।

এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা বলছে, পরীক্ষা সময়মতো না হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে হতাশা কাজ করছে। একই সাথে কবে নতুন করে পরীক্ষার সময়সূচি জানানো হবে তা নিয়েও তারা চিন্তিত রয়েছে।

ঢাকা কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী আবু সাদাত আল ফারুক আমার সংবাদকে বলেন, নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলে সবার জন্যই ভালো হতো।

কিন্তু দেশের চলমান পরিস্থিতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। আবার বাসায় বসে পরীক্ষার প্রস্তুতিও ঠিক মতো নিতে পারছি না। এ অবস্থায় শুধু উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে দিন কাটছে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থী সাহানা পারভীন আমার সংবাদকে বলেন, কবে পরীক্ষা হবে তা কেউ জানে না। এ অবস্থায় ভালো থাকা যেমন কঠিন হয়ে পড়েছে, তেমনি ভালো করে লেখাপড়াও হচ্ছে না।

তবে শিক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব কমিটির সভাপতি ও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড, ঢাকার চেয়ারম্যান প্রফেসর মু. জিয়াউল হক।

তিনি এর আগে আমার সংবাদকে বলেন, শেষ সময়ের প্রস্তুতি পরীক্ষার জন্য খুবই কাজে দেয়। তাই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় না থেকে বাসায় বসে ভালো করে প্রস্তুতি নিলে পরীক্ষার্থীরা ভালো করবে।

পরীক্ষার শুরুর বিষয়ে তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও পরীক্ষা শুরু করতে অন্তত ১৫ দিন সময় লাগবে। করোনা পরিস্থিতির ওপর এইচএসসি পরীক্ষা নির্ভর করছে।

আমারসংবাদ/এসটিএমএ