শিরোনাম

ধোনির গ্লাভস থেকে সরল সেনাবাহিনীর প্রতীক

স্পোর্টস ডেস্ক   |  ০৫:২৩, জুন ১০, ২০১৯

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই বিতর্কে জরিয়েছিলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক এমএস ধোনি। তাঁর উইকেট কিপিং গ্লাভসে সেনাবাহিনীর উদ্দেশে শ্রদ্ধা স্বরূপ যে প্রতীক তিনি ব্যবহার করেছিলেন তা ঘিরে যেমন সোশ্যাল মিডিয়ায় ধোনির নামে ধন্য ধন্য করা হচ্ছিল ঠিক তার উল্টো সুরে গাইতে শোনা গেল আইসিসিকে।

আইসিসি পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে এই প্রতীক নিয়ে তিনি বিশ্বকাপের খেলতে পারবেন না। আইসিসির নিয়ম বহির্ভূত কাজ এটি। বিসিসিআই-এর আর্জিও তারা নাকচ করে দেয়। তা নিয়ে সমর্থক মহলে প্রভূত প্রশ্ন উঠেছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নিজেদের জায়গা থেকে সরেনি আইসিসি। রোববার (০৯জুন) অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচে ধোনিকে অন্য গ্লাভস পরেই নামতে দেখা গিয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে একটি স্টাম্প আউট করার সময় ধোনির গ্লাভসের সেই প্রতীক টেলিভিশন চ্যানেলের ক্যামেরায় ধরা পড়ে যায়। মুহূর্তের মধ্যেই সেই ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। ধোনির দেশপ্রেম নিয়ে সকলেই সেই সময় কথা বলতে শুরু করে এবং ধোনির এই উদ্যোগকে সাধুবাদ দেন। কিন্তু তার স্থায়ীত্ব যে এক ম্যাচই হবে তা কে বুঝেছিল।

বিশ্বকাপের পোশাক এবং সরঞ্জামের নিয়ম অনুযায়ী, একমাত্র তৈরি করা সংস্থার লোগো গ্লাভসের পিছনে ব্যবহার করা যাবে। এছাড়া, রাজনৈতিক ও জাতীয় মতাদর্শ বহন করছে এমন প্রতীক ছাড়া অন্য কিছু ব্যবহার করা যেতে পারে। এমএস ধোনিকে আগেই সম্মানসূচক সেনাবাহিনীর উচ্চ পদ দেয়া হয়েছে। তার পর তিনি সেনাবাহিনীর সঙ্গে ট্রেনিংও করেছেন।

গত মার্চেই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ওডিআই সিরিজের একটি ম্যাচে যেটি হয়েছিল ধোনির শহর রাঁচিতে, সেখানে সেনাবাহিনীর টুপি পরে খেলতে নেমেছিল ভারতীয় দল। কারন তার আগেই পুলওয়ামায় জঙ্গি আক্রমনে শহীদ হয়েছিলেন সেনা জওয়ানরা।

তাঁদের সম্মানার্থে এই টুপি পরার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিসিসিআই। সেই সময়ও বিতর্ক কম হয়নি। তবে আইসিসি অনুমতি নিয়েই এই টুপি ব্যবহার করায় সমস্যা হয়নি ভারতের।

অতীতে আইসিসি রাজনৈতিক মন্তব্য করায় প্লেয়ারেদর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা মইন আলির রিস্টব্যান্ডও বাতিল করেছে, যেখানে লেখা ছিল ‘সেভ গাজা' এবং ‘সেভ প্যালেস্তাইন'।

সুত্র-এনডিটিভি

এমএআই

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত