শিরোনাম

সাকিবের ১ দিনের আয় শুনলে চমকে উঠবেন যে কেউই!

স্পোর্টস ডেস্ক   |  ০৭:২৪, জুলাই ১৭, ২০১৯

বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। নিজের অসামান্য ক্রিকেট প্রতিভা দিয়ে তিনি জয় করেছেন সারা বিশ্ব। দেশে তো বটেই, বিদেশের ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক লিগগুলোতেও অন্যতম আকর্ষণ সাকিব। তাইতো অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশ থেকে ক্যারিবীয় সিপিএল, ইংল্যান্ডের কাউন্টি ক্রিকেট সবখানেই খেলেছেন তিনি। আইপিএলে তো খেলছেন বহু আগেই।

খেলার পাশাপাশি মডেলিংয়ে আছে সাকিবের দারুণ চাহিদা। আছে নিজস্ব রেস্টুরেন্ট ব্যবসা। ফলে বিভিন্ন মাধ্যম প্রচুর আয় করে থাকেন এই তারকা ক্রিকেটার। এই কারণে জনমনে তাকে নিয়ে একটাই প্রশ্ন দারুণ চাউর হয়, সাকিবের আয় কত? তার অর্থসম্পদের পরিমাণ কত?

বিসিবির দেয়া তথ্যানুযায়ী, প্রতি মাসে সাকিব আল হাসান চুক্তি অনুযায়ী ৪ লক্ষ টাকা বেতন পেয়ে থাকেন। এছাড়া সহ-অধিনায়ক হিসেবে অতিরিক্ত ১০ হাজার টাকা পান তিনি। এ হিসেবে শুধুমাত্র বিসিবির বেতন থেকেই বছরে অর্ধকোটি টাকা আয় করেন সাকিব আল হাসান।

এ ছাড়াও ম্যাচ ফি থেকেও ভালো উপার্জন করেন সাকিব। প্রতিটি টেস্ট ম্যাচ থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা পেয়ে থাকেন এই ক্রিকেটার। ওয়ানডে’তে ২ লাখ টাকা নেন। তাছাড়া টি-টুয়েন্টি ম্যাচ থেকে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা ফি পান সাকিব।

আইপিএলে সাকিবের দল সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ। সেখান থেকে প্রতি মৌসুমে ২ কোটি টাকা পেয়ে থাকেন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। চুক্তি পরিবর্তনে এই পরিমাণ আরো বাড়তেও পারে।

তবে এতো শুধুমাত্র বিসিবি ও আইপিএল’র হিসাব। এছাড়া রেস্টুরেন্ট ব্যবসা, বিজ্ঞাপনসহ আরো বিভিন্ন মাধ্যমেই প্রচুর আয় করে থাকেন সাকিব আল হাসান। বিশ্বস্ত সূত্রমতে, সাকিব আল হাসান গড়ে দৈনিক ১ লাখ টাকা আয় করেন। মাস শেষে যা দাঁড়ায় ৩০ লাখ। বাৎসরিক যেটা ৩,৬৫,০০০০০ টাকার মত।

২০১৮ সালের এক হিসেব অনুযায়ী সাকিব আল হাসানের আনুমানিক সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ২৩০ কোটি টাকা। কোথাও কোথাও ২৭৬ কোটি টাকাও দেখানো হয়েছে। এ ছাড়া প্রতি বছর আনুমানিক ২৯ কোটি টাকা আয় করে থাকেন এই ক্রিকেটার।

তবে এতো অর্থবিত্তের পরেও বেশ স্বাভাবিক জীবনযাপন করেন সাকিব আল হাসান। ব্যক্তিগত বাড়ি গাড়ির অভাব না থাকলেও নিতান্তই সহজ সরল তার পথচলা। বিভিন্ন সময় ভক্তদের সঙ্গে ছোট-খাটো ঝামেলার কথা শোনা গেলেও সেসব নিতান্তই তুচ্ছ ঘটনা।

এ ছাড়াও বিভিন্ন মাদ্রাসা ও এতিমখানায় নিয়মিত দান করেন সাকিব। গতবছর একটি অনুষ্ঠানে কাজের লোককে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া এবং একই টেবিলে বসে খাওয়ার ঘটনাও দৃষ্টি কাড়ে সকলের। টাকা হলেই যে মানুষ অন্ধ হয়ে যায়, এই কথাকে যেনো ভুল প্রমাণ করেছেন এই তারকা।

তবুও দেশের মানুষের কাছে সাকিবকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপনের চেষ্টা করা হয়ে থাকে বারবার। তবে এসব নিয়ে বরাবরই নির্বিকার থেকেছেন সাকিব। এখানেই যেনো তার মহত্ব চলে যায় আরো একধাপ উপরে।

জেডআই

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত