শিরোনাম

তারা বুড়ো হয়ে গেছেন!

স্পোর্টস ডেস্ক   |  ০৬:০৮, জুলাই ১৮, ২০১৯

সদ্য শেষ হয়েছে ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯। কিন্তু, এখনও ক্রিকেটপ্রেমীদের মন থেকে তার রেশ কাটেনি। ভারতীয় দল কাপ না জেতার হতাশা ভারতীয় সমর্থকদের মনে এখনও রয়ে গিয়েছে।

আর কিউই সমর্থকদের হতাশার ভাগিদার হয়েছে গোটা ক্রিকেট দুনিয়া। এইসব হতাশা, না পাওয়া ইংল্যান্ডের বিতর্কিত কাপ জয় ভুলে এগিয়ে যেতে রঙ্গ রসিকতায় মেতেছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।

ইংল্যান্ড বিশ্বজয়ী হলেও জনপ্রিয়তার শীর্ষে যে রয়েছে ভারতীয় দলই, তা বলাই বাহুল্য। আর বিশ্বকাপের সবচেয়ে আলোচনা হয়েছে যে ভারতীয়কে নিয়ে তিনি বলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি।

একটু ভুল বলা হল, আলোচনাটা ঠিক তাকে নিয়ে নয়, হয়েছে তাঁর বুড়িয়ে যাওয়া নিয়ে। আর সেখান থেকেই এখন ইন্টারনেটে শুরু হয়েছে '৫০ ইয়ার্স চ্যালেঞ্জ', অর্থাত ৫০ বছর পর কে কেমন দেখতে হবেন তাই নিয়ে চর্চা।

এই বছরের শুরুতে ইন্টারনেট মাতিয়েছিল '১০ ইয়ার্স চ্যালেঞ্জ'। সেই ক্ষেত্রে ১০ বছর আগের ছবির সঙ্গে বর্তমান সময়ের ছবি পাশাপাশি পোস্ট করে গত ১০ বছরে চেহারার কত পরিবর্তন হয়েছে তাই নিয়ে চর্চা চলছিল।

আর এই নতুন চ্যালেঞ্জে জনপ্রিয় ফটো অ্যাপ ব্যবহার করে ৫০ বছর পর কে কেমন দেখতে হবে, তা বের করা হচ্ছে।

শুরুটা হয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটার মহেন্দ্র সিং ধোনি, বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, রবীন্দ্র জাদেজা ভুবনেশ্বর কুমার, রবীন্দ্র জাদেজাদের দিয়ে। পরে নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসন, অজি ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, 'ইউনিভার্স বস' ক্রেস গেইল, শ্রীলঙ্কান পেসার লাসিথ মালিঙ্গা, সদ্য আফগান অধিনায়ক হওয়া রশিদ খান -সহ বেশ কয়েকজন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারের ৫০ বছর পরের ছবি তৈরি করা হয়।

আর এই ছবিগুলি সামনে আসতেই বিভিন্ন মজার মজার প্রতিক্রিয়া এসেছে সমর্থকদের তরফে। একজন বলেছেন, বৃদ্ধ বয়সেও টিম ইন্ডিয়ার সহঅধিনায়ক রোহিতশর্মা হ্যান্ডসামই রয়েছেন। আর শিখর ধাওয়ান নিজেই নিজের ৫০ বছর পরের ছবি পোস্ট করেছেন।

কী এই ফেইসএ্যাপ এবং কীভাবে এটাকে ব্যবহার করা হয়?
জানা গেছে, এই অ্যাপটিকে ব্যবহার করার জন্য প্রথমে গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে৷ তারপর এটি খুলে অ্যাড ইমেজ অপশন ক্লিক করে নিজের একটি ছবি আপলোড করতে হবে৷ আবার ক্যামেরা অপশনে গিয়ে সঙ্গে সঙ্গে কেউ ছবি তুলেও নিতে পারেন।

এরপর সেই ছবি এলেই, স্মাইল, ওল্ড, টু ইয়ং-এর মতো অপশনগুলিতে ক্লিক করে নিজের বার্ধক্য, যৌবনকালে মুখের আকৃতি চোখের সামনে দেখতে পাবেন ব্যবহারকারীরা।

বন্ধুদের সঙ্গে সেই ছবি ভাগ করে নিতে, ক্লিক করতে হবে শেয়ার অপশনে৷ এরপরই হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটারের মতো সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ছবি শেয়ার করা যাবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই অ্যাপের মাধ্যমে নিমেষে আপনি বয়স্ক মানুষে পরিণত হতে পারবেন। শুধু তাই নয়, বয়স্করা হয়ে যেতে পারেন তরুণও। সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন এই অ্যাপই রয়েছে ট্রেন্ডিং তালিকায়।

তবে সম্প্রতি এলিজাবেথ পটস উইন্সটাইন নামের এক মহিলা টুইটারে ফেইসএ্যাপ ব্যবহারের যে শর্তাবলী পোস্ট করেছেন, তা দেখে চোখ কপালে উঠেছে বিশেষজ্ঞদের৷

শর্তাবলীতে লেখা রয়েছে, এই অ্যাপটি আপনার ফোনে একবার ডাউনলোড করলেই, কোম্পানির কাছে চলে যাবে ব্যবহারকারীর সমস্ত গোপন তথ্য৷

অ্যাপটি ফোনে একবার ডাউনলোড করা মানেই নাকি, ওই কোম্পানিকে সমস্ত তথ্য বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া।

তাই বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিজ তথ্যকে গোপন রাখতে চাইলে এই অ্যাপটি ফোনে না ডাউনলোড করাই শ্রেয়।

এমএআই

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত