শিরোনাম

বার্জার পেইন্টসের বিক্রি বেড়ে দ্বিগুণ

প্রিন্ট সংস্করণ॥অর্থনৈতিক প্রতিবেদক   |  ০১:৪৮, আগস্ট ১৭, ২০১৯

প্রতি বছরই দেশে ব্যক্তিমালিকানাধীন বাড়ির সংখ্যা বাড়ছে। পাশাপাশি আবাসন ও নির্মাণ খাতেও প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। আর এর সুবাদে দেশের রঙের বাজারে ভালো ব্যবসা করছে বহুজাতিক কোম্পানি বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড। ব

বর্তমানে দেশের রঙের বাজারের ৫৫ শতাংশই কোম্পানিটির দখলে। প্রতি বছরই এর বাজার বাড়ছে। কোম্পানিটির আর্থিক প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, গত ছয় বছরে বার্জারের বিক্রি বেড়েছে দ্বিগুণ। পাশাপাশি এ সময় কোম্পানিটির কর-পরবর্তী মুনাফা বেড়েছে ২ দশমিক ২৭ গুণ।

আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০১৩ হিসাব বছরে বার্জার পেইন্টসের বিক্রি ছিল ৮৭৯ কোটি টাকা। সর্বশেষ ২০১৮-১৯ হিসাব বছরে এসে যা ১ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। একইভাবে ২০১৩ হিসাব বছরে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী মুনাফা ছিল ৮৬ কোটি টাকা। এটি সর্বশেষ ২০১৮-১৯ হিসাব বছরে ১৯৫ কোটি টাকা হয়েছে।

বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশের কোম্পানি সচিব খন্দকার আবু জাফর সাদিক বলেন, কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে গেল বছর কোম্পানির ব্যবসায় কিছুটা প্রভাব পড়েছে।

তবে পরিচালন ব্যয় সংকোচনের মাধ্যমে আমরা তা সমন্বয় করার চেষ্টা করছি। অবশ্য বেশ কয়েক বছর আগে থেকে আমরা ব্যয় সংকোচন নীতি অনুসরণ করছি। আর এতে কোম্পানির মুনাফায় ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

এদিকে বাজারে নিজেদের অবস্থান রাখতে ধারাবাহিকভাবে উৎপাদন সক্ষমতাও বাড়িয়েছে বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ। গত ছয় বছরে কোম্পানিটির উৎপাদন সক্ষমতা ২ দশমিক ৪৫ গুণ বেড়েছে। সক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি কোম্পানিটি দক্ষতার সঙ্গে তা কাজে লাগিয়েছে। কোম্পানিটির তরল রঙ উৎপাদনের ক্ষেত্রে গড়ে ৮৬ শতাংশ সক্ষমতা কাজে লাগিয়েছে। অ-তরল রঙের ক্ষেত্রে যা ৮৮ শতাংশ।

৩১ মার্চ সমাপ্ত ২০১৯ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ২৫০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে বার্জার পেইন্টস। এ সময় কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৪৪ টাকা ১৩ পয়সা।

এর আগে ২০১৮ সালের ৩১ মার্চ সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ২০০ শতাংশ নগদের পাশাপাশি ১০০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয় বার্জার পেইন্টস। সে বছর কোম্পানিটির ইপিএস ছিল ৭৭ টাকা ১০ পয়সা।

তার আগে ২০১৭ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত ১৫ মাসে সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ১৭৫ শতাংশ অন্তর্বর্তী লভ্যাংশের পর আরো ৪২৫ শতাংশ চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটি। ২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৩৭০ শতাংশ নগদ পেয়েছিলেন কোম্পানির শেয়ারহোল্ডাররা।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন) বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেডের সম্মিলিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১১ টাকা ১২ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময় যা ছিল ৭ টাকা ৩৯ পয়সা। এ হিসাবে আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ৩ টাকা ৭৩ পয়সা বা ৫০ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত