শনিবার ০৪ এপ্রিল ২০২০

২১ চৈত্র ১৪২৬

ই-পেপার

সামসুল ইসলাম সনেট, কেরানীগঞ্জ (ঢাকা)

ফেব্রুয়ারি ১৫,২০২০, ০৭:৪৮

ফেব্রুয়ারি ১৫,২০২০, ০১:৪৮

শীগ্রই শুরু হচ্ছে সোনাকান্দা-সৈয়দপুর ব্রিজের নির্মাণ কাজ

হেমায়েতপুর, গাবতলী, মোহাম্মদপুর সহ উত্তরবঙ্গের সাথে বিক্রমপুরের সিরাজদিখান, ফরিদপুর, শরিয়তপুর তথা দক্ষিণবঙ্গের সহজ যোগাযোগের লক্ষে ধলেশ্বরী নদীর উপড় নির্মিত হতে যাচ্ছে নতুন সোনাকান্দা-সৈয়দপুর ব্রিজ। বহু প্রতিক্ষিত এই ব্রিজটি নির্মিত হলে ঢাকা শহরের যানজটকে পাশকাটিয়ে পদ্মা সেতুর মাধ্যমে উত্তরবঙ্গকে দক্ষিণবঙ্গের সাথে মিলিত করবে।

এছাড়া সড়কটি ঢাকা-মাওয়া জাতীয় মহাসড়ক এবং জিনজিরা-কেরানীগঞ্জ-নবাবগঞ্জ-দোহার-শ্রীনগর আঞ্চলিক মহাসড়কের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করেছে। কেরানীগঞ্জ, নবাবগঞ্জ, সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলাসহ ফরিদপুরের গুরুত্বপূর্ণ নিত্য প্রয়োজনীয় কৃষিজাতপণ্য প্রতিনিয়ত রাজধানীসহ বিভিন্ন শহরে পৌঁছানোর জন্য ঢাকা-মাওয়া সড়ক ছাড়া বিকল্প সড়ক হিসেবে নতুন সড়কটি ব্যবহার করা যাবে। সড়কটি রাজধানী ঢাকার কাছাকাছি উপজেলা হওয়ায় কেরানীগঞ্জ, সিরাজদিখান, শ্রীনগর ও নবাবগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দারা সহজে ও দ্রুত সময়ে রাজধানীতে যাতায়াত করতে পারবে।

২৩.৮৯ কিলোমিটার দীর্ঘ এই প্রকল্পটিতে সিরাদিখানে ২৩ কিলোমিটার এবং কেরানীগঞ্জে পড়েছে দশমিক ৮৯ কিলোমিটার। ইতোমধ্যেই প্রকল্পটি অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। যা বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ৪শত ৯ কোটি টাকা।

প্রকল্পের আওতায় ৬ দশমিক ৮২ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণ ও ক্ষতিপূরণ, ১১৫ দশমিক ৯৯ বর্গমিটার ইকুরিয়া স্থানে এসডিই আবাসিক ভবন, ইকুরিয়া স্থানে বাউন্ডারি দেয়াল, সড়কবাঁধ প্রশস্তকরণ, নতুন পেভমেন্ট, অ্যাপ্রোচ সড়ক, সার্ফেসিং, পিসি গার্ডার ও আরসিসি সেতু, আরসিসি প্রোটেকশন উইথ জিও-টেক্সটাইল, আরসিসি টো-ওয়াল এবং আরসিসি রিটেইনিং ওয়াল নির্মাণ করা হবে।

ব্রিজ ছাড়াও কেরানীগঞ্জ থেক হাসাড়া পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্ততায়ন, দুই পাড়ে একাধিক আন্ডারপাস ও ইউলোক নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের লক্ষে গতকাল ১৪ জানুয়ারি (শুক্রবার) সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়ের একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দল নির্মাণস্থল নতুন সোনাকান্দা বিসিক শিল্পনগরী এলাকা পরিদর্শন করেন।

এ সময় তারা সম্ভাব্য জায়গাসহ কি ভাবে জনগণের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমানো যায় সে বিষয়ে আলোচনা করেন। তবে জাতীয় স্বার্থে এ ব্যপারে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হননি কর্মকর্তারা।

উল্লেখ্য যে, সেতুটি বাস্তবায়ে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে প্রায় ২০ বছর যাবত প্রচারণা চালাচ্ছেন সৈয়দপুরের অদম্য যুবক জাহাঙ্গীর খান।

আমারসংবাদ/এমআর