বৃহস্পতিবার ০৪ জুন ২০২০

২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

হুমায়ুর কবির, গৌরীপুর

এপ্রিল ০৪,২০২০, ০৫:৪২

এপ্রিল ০৪,২০২০, ০৫:৪২

গৌরীপুরে মানছে না করোনা সতর্কতা

ময়মনসিংহের গৌরীপুর করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় পৌর শহরের বাসিন্দারা সতর্ক থাকলেও, গ্রামে তা দেখা যাচ্ছে না।

শনিবার (৪ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার ৬নং বোকাইনগর ইউনিয়নের বাংলা বাজারের সামাজিক দূরত্বের চিত্র ছিল আশানুরুপ।

এছাড়া প্রতিটি ইউনিয়নের বিভিন্ন বাজার এলাকায় সরেজমিনে দেখা গেছে অধিকাংশ মানুষই করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সামাজিক দূরত্বের বিষয়ে সচেতন না। অচিন্তপুর ইনিয়নের শাহাগঞ্জ বাজার,মাওহা ইনিয়নের ভুটিয়ারকোণা বাজার, নহাটা বাজার, সহনাটি ইউনিয়নের পাছার বাছার, ভালুকাপুর বাজার, মইলাকান্দ্ ইউনিযনের গবিন্দপুর বাজার, শ্যামগঞ্জ বাজার, সিধলা ইউনিয়নের মনাটি বাজার, গৌরীপুর ইউনিয়নের শালিহর নতুনবাজার, রামগোপালপুর ইউনিয়নের ধরুয়াবাজার, তেরশিরা নতুন বাজারে ব্যস্ত কেনা-বেচায়। মুদি দোকান, চায়ের স্টলে আড্ডা দিতে দেখা গেছে। মাস্ক না পড়েই বাইরে ঘোরাঘুরি করছেন তারা।

অন্যদিকে হোম কোয়ারান্টাইন মানছেন ত্রাণ গ্রহীতারা। ত্রাণ আসছে খবরে দল বেধেঁ তারা এক মহল্লাহ থেকে অন্য মহল্লায় ছুটছেন। এতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আসল কাজটাই ভেস্তে যাচ্ছে। যারা ত্রাণ দিচ্ছেন এ বিষয়টি আমলে আনলে সবাই উপকৃত হবো। শ্যামগঞ্জ বাজারের এক ক্রেতা জানালেন, এখানে এসব দরকার হয় না।

কনিবার ময়মনসিংহের গৌরীপুর হাটের দিন করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে গৌরীপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ বোরহান উদ্দিন খানের নেতৃত্বে শহরের সর্বত্র মাইকিং করা হয়। কিন্ত উপজেলা প্রশাসন গৌরীপুরের পুর্বাঞ্চল এলাকার বাজার গুলোতে অভিযান পরিচালনা করার দাবি জানিয়েছেন সচেতন নাগরিকরা।

এদিকে ময়মনসিংহের গৌরীপুরে করোনা ভাইরাস সংক্রামণ ঠেকাতে শুক্রবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেঁজুতি ধর এর নেতৃত্বে শহরে, বালুয়াপাড়া বাজার ও রামগোপালপুর বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। একই বিধিনিষেধ ভঙ্গ করে দোকান খোলা রাখা ও কারণ ছাড়াই বাহিরে ঘুরাফেরা করায় কয়েকজনকে জরিমানা করেন।

অপরদিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মাসুদ রানা’র নেতৃত্বে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, নিষিদ্ধ দোকানপাট বন্ধ ও গনসমাগম রোধ করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত ও অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইউএনও সেঁজুতি ধরের পরিচালত ভ্রাম্যমাণ আদালত গৌরীপুর বাজার, গোবিন্দপুর বাজার, শ্যামগঞ্জ বাজার, ডেংগা বাজার, মনাটি বাজার, সতিষা এবং বিভিন্ন মোড়ের চায়ের সাতটি দোকানে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। অপর অভিযানে অচিন্তপুর বাজার, গাগলা বাজার, পাছার বাজার, কাচারি বাজারের ৩টি দোকানে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মাসুদ রানা পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত ১০টি দোকানে ৯ হাজার ৮শ টাকা জরিমানা করেন। এছাড়াও দু’জনের অভিযানে শতাধিক চায়ের দোকান অপসারণ ও গণসমাগম ভেঙ্গে দেন।

আমারসংবাদ/এমআর